ঢাকা,  মঙ্গলবার  ১৮ জুন ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

কোরবানির জন্য পশু কেনার পর নতুন শরিক নেয়া যাবে?

প্রকাশিত: ১৬:১৮, ১০ জুন ২০২৪

কোরবানির জন্য পশু কেনার পর নতুন শরিক নেয়া যাবে?

কোরবানির জন্য পশু কেনার পর নতুন শরিক নেয়া যাবে?

মুসলিম সমাজে কোরবানিতে অন্যকে শরিক করার প্রচলন রয়েছে। উট, গরু, মহিষ সাত ভাগে এবং সাতের কমে যেকোনো সংখ্যা যেমন দুই, তিন, চার, পাঁচ ও ছয় ভাগে কোরবানি করা জায়েজ। (মুসলিম: ১৩১৮; বাদায়েউস সানায়ে: ৪/২০৭)। উটের বয়স পাঁচ বছর হতে হবে। গরু ও মহিষের বয়স দুই বছর হতে হবে। (মুআত্তা মালেক: ৭৫৪)

কোরবানিতে কাউকে শরিক করার ক্ষেত্রে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ও জরুরি বিষয় হলো অংশীদার নির্বাচন করতে প্রত্যেককে ভালোভাবে জেনে-বুঝে নিতে হবে। কারণ শরিকের কারও নিয়ত গলদ হলে কারও কোরবানিই (অন্য শরিকদের কারও কুরবানি) শুদ্ধ হবে না।

অনেকের প্রশ্ন, ‘একা কোরবানির জন্য পশু কিনে অন্যদের শরিক করা যাবে?’ যদি কেউ একা কোরবানি করার জন্য একটা গরু বা মহিষ কেনে এবং মনে মনে ইচ্ছা রাখে পরে আরো লোককে অংশীদার করবে, তাহলে তা জায়েজ আছে। কিন্তু কেউ যদি পুরা গরু একাই কোরবানি করার নিয়তে ক্রয় করে, তাহলে পরবর্তীতে তাতে অন্যদের শরিক করা মাকরুহ। এরপরও অন্যদের শরিক করে নিলে কোরবানি আদায় হয়ে যাবে। তবে এ ব্যাপারে ফকিহদের বক্তব্য হলো— এক্ষেত্রে পশু ক্রেতার জন্য উচিত হবে, শরিকদের থেকে প্রাপ্ত টাকা সদকা করে দেওয়া।

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো- যদি পশু ক্রয়কারী এমন হয়, যার ওপর কোরবানি ওয়াজিব নয় এবং তিনি পশু কেনার সময়ও অন্যদের শরিক করার নিয়ত করেননি তবে নতুন করে কাউকে অংশীদার করা যাবে না। তাকে এককভাবেই কোরবানি করতে হবে। (কিতাবুল আছল: ৫/৪০৮; আলমাবসুত, সারাখসি: ১২/১৫; ফতোয়ায়ে খানিয়া: ৩/৩৫১; আলমুহিতুল বুরহানি: ৮/৪৭৭; রদ্দুল মুহতার: ৬/৩১৭, ফতোয়ায়ে হিন্দিয়া: ৫/৩০৪)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে শরিয়তের নির্দেশনা অনুযায়ী যথাযথভাবে কোরবানি করার তাওফিক দান করুন। আমিন।