ঢাকা,  শনিবার  ২২ জুন ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

গাজীপুরে কাল থেকে সব থানায় আওয়ামী লীগের মূল্যায়ন সভা

প্রকাশিত: ০০:৪১, ৩১ মে ২০২৩

গাজীপুরে কাল থেকে সব থানায় আওয়ামী লীগের মূল্যায়ন সভা

ফাইল ছবি

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন শেষ হয়েছে গত ২৫ মে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী আজমত উল্লা খান হেরে যান স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুনের কাছে। এই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে গঠন করা হয়েছিল নির্বাচন পরিচালনা কমিটি। হেরে যাওয়ার পর আজমত উল্লাহ খান সেই সব নেতাদের নিয়ে মূল্যায়ন সভা ডেকেছেন। মূল্যায়ন সভা (৩১ মে) থেকে ৮ জুন পর্যন্ত চলবে।

আজমত উল্লা খান তার ফেসবুক পোস্টে জানান, আগামীকাল ৩১ মে সকাল ১০ টায় কাশিমপুর থানায় মূল্যায়ন সভা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর একইদিন বিকেল ৩টায় কোনাবাড়ি থানা ও বাসন থানা কমিটিকে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা সাগর সৈকত কনভেনশন সেন্টারে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। সভায় উপস্থিত থাকবেন গাজীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক । 

এছাড়া আগামী ৩ জুন সকাল ১০টায় কাউলতিয়া থানা, গাজীপুর সদর থানা, ৬ জুন টঙ্গী পূর্ব ও পশ্চিম থানা, ৮ জুন টঙ্গির মুদাফা এলাকার ইন সিগনা রিসোর্ট সভার আয়োজন করা হয়। এসব সভায় উপস্থিত থাকবেন গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ও যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। প্রতিটি সভায় সভাপতিত্ব করবে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগ।

মহানগরীর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা জানান, গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রায় ১৭ জন নেতা দলীয় মনোনয়ন চেয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। এরমধ্যে থেকে দল মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি আজমত উল্লাকে মনোনয়ন দেন। এই নির্বাচনকে সামনে রেখে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু সেই নির্বাচনে সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের মা জায়েদা খাতুনের কাছে হেরে যান আজমত উল্লা। 

নির্বাচনে পরাজয়ের পর পর গত রোববার আজমত উল্লা খান মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক মোজাম্মেল হকের সঙ্গে গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখে করেন। সেখান থেকে ফিরে সোমবার দুপুরে নির্বাচন-পরবর্তী মূল্যায়ন সভার ঘোষণা দেন তারা। 

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লা খান বলেন, ‘৩১ মে থেকে ৮ জুন পর্যন্ত সব থানার নেতাকর্মীদের নিয়ে মূল্যায়ন সভার আয়োজন করেছি। ওই সভায় নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন শুনবো। দায়িত্বের ক্ষেত্রে ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা হবে।’  

উল্লেখ্য, গাজীপুর সিটি নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে পাওয়া ৪৮০টি কেন্দ্রের ওয়ার্ডভিত্তিক ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যায় ২৫২ টি কেন্দ্রে আজমত উল্লা পরাজিত হয়েছেন।  সিটি নির্বাচনে টঙ্গী ছাড়া অন্য প্রায় সব এলাকাতেই আজমত উল্লা খানের চেয়ে মেয়র পদে জয়ী জায়েদা খাতুন বেশি ভোট পেয়েছেন। গাজীপুর-১ আসনের ওয়ার্ডগুলোতে আজমত উল্লা খান ও জায়েদা খাতুন প্রায় সমান ভোট পেয়েছেন।