ঢাকা,  শনিবার  ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

‘ইভিএমে জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ নেই বিধায় অনেক প্রার্থী এজেন্ট দেননি’

প্রকাশিত: ১৬:৫৯, ২৫ মে ২০২৩

‘ইভিএমে জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ নেই বিধায় অনেক প্রার্থী এজেন্ট দেননি’

নির্বাচন পর্যবেক্ষণে গিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আবেদ আলী

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন পর্যবেক্ষণ গিয়ে ইলেকশন মনিটরিং ফোরামের (ইএমএফ) চেয়ারম্যান আবেদ আলী বলেছেন, ‘আমরা ৪২টি কেন্দ্র পরিদর্শন করেছি। দুপুর পর্যন্ত ২৮ থেকে ২৯ শতাংশ ভোট কাস্ট হয়েছে বলে ধারণা করছি। ৪০ শতাংশ পার হতে পারে। ভোট শান্তিপূর্ণ হচ্ছে, হট্টগোলের খবর পাইনি।’

তিনি বলেন, ‘অনেক প্রার্থী এজেন্ট দেননি। কারণ ইভিএমটাই তাদের এজেন্ট। এখানে জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ নেই বিধায় তারা এজেন্ট দেননি। পরিদর্শন করা ৪২টি কেন্দ্রে মধ্যে বেশিভাগে এজেন্টের উপস্থিতি কম। এর মধ্যে কেন্দ্রে জাতীয় পার্টির ৩, ইসলামি আন্দোলনের ১০ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুনের দুই কেন্দ্রে এজেন্ট পেয়েছি। বাকিগুলোতে নেই। আমরা যখন কথা বলেছি তারা জানিয়েছেন, আমাদের এজেন্টের দরকার নেই। এখানে যেহেতু ইভিএমে ভোট হচ্ছে জাল করার সুযোগ নেই। এজেন্টের ওপর চাপ প্রয়োগ ও কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগও আসেনি।’

বৃহস্পতিবার (২৫ মে) বিকাল পৌনে ৩টায় শহরের রানী বিলাসমনি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে পর্যবেক্ষণ শেষে ব্রিফিংয়ে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

আবেদ আলী বলেন, ‘আমাদের মূল্যায়ন হলো, জাতীয় নির্বাচনের আগে এটির গুরুত্ব আছে। শুধু দেশ না বিদেশের মানুষও তাকিয়ে আছে। শান্তিপূর্ণ হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের আন্তরিকতা ছিল। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সব করেছে। পর্যবেক্ষক হিসেবে কমিশন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ধন্যবাদ দিচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘একটা কেন্দ্র মদিনাতুল উলুম মাদ্রাসায় ১০ হাজার মানুষ ভোট দেওয়ার জন্য পরিবেশ ভালো ছিল না। আমরা কেন্দ্রের বাইরে অনেক লোকের সমাগম দেখিনি। তবে কেন্দ্রের অভ্যন্তরে ভোটার ছাড়া কারও উপস্থিতি পাইনি। আমরাতো মাত্র ৪২টি কেন্দ্রে গেছি, কিন্তু এখানে ৪৮০টি কেন্দ্র। অন্য কোথাও কিছু ঘটলে সেটি এখনও আমাদের নলেজে আসেনি।’