ঢাকা,  শনিবার  ২০ জুলাই ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

জন্মহার বাড়াতে নতুন মন্ত্রণালয় গঠন করছে দ. কোরিয়া

প্রকাশিত: ১৬:১৪, ২ জুলাই ২০২৪

জন্মহার বাড়াতে নতুন মন্ত্রণালয় গঠন করছে দ. কোরিয়া

জন্মহার বাড়াতে নতুন মন্ত্রণালয় গঠন করছে দ. কোরিয়া

জন্মহার হ্রাস এবং বয়স্ক জনসংখ্যা বেড়ে যাওয়ার সমস্যা প্রতিনিয়তই মোকাবেলা করতে হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়াকে। তাই এ সমস্যা সমাধানে দেশটি মিনিস্ট্রি অফ পপুলেশন স্ট্রাটেজি (জনসংখ্যা কৌশল মন্ত্রণালয়) নামে নতুন মন্ত্রনালয় চালু করতে যাচ্ছে। 

গত সোমবার (১ জুলাই) ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে উচ্চপর্যায়ের বৈঠকের পর এ পরিকল্পনা উন্মোচন করা হয় বলে জানিয়েছেন সরকারের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা। তারা বলেন, মন্ত্রণালয় চালু করার জন্য জুলাইয়ের মধ্যে সরকার একটি সংশোধিত আইন সংসদে প্রস্তাব করবে।

এ আইন পাশ হলে, কোরিয়ার এ নতুন মন্ত্রণালয় জনসংখ্যা সংক্রান্ত সমস্যাগুলোর জন্য কৌশল ও পরিকল্পনার উপর বেশি মনোযোগ দিতে পারবে এবং জন্মহার হ্রাস, বয়স্ক জনসংখ্যা, কর্মশক্তি ও অভিবাসন – এই বিষয়গুলোর উপর কন্ট্রোল টাওয়ার হিসাবে কাজ করতে পারবে।

মন্ত্রণালয়টি জনসংখ্যা বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে গঠিত হলেও এটি দীর্ঘমেয়াদী কৌশল তৈরি করতে  সাহায্য করবে। যা বর্তমানে দেশটির স্বাস্থ্য ও অর্থ মন্ত্রণালয় দ্বারা পরিচালিত হয়ে আসছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, জনসংখ্যা কৌশল মন্ত্রণালয় জন্মহার হ্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য বাজেট বরাদ্দ ও সমন্বয়ের দায়িত্বেও থাকবে।

অন্তর্বর্তী সময়ে, নতুন মন্ত্রণালয়ের প্রধান হিসেবে বর্তমানে যে শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত আছেন তিনিই সামাজিক বিষয়ক উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের মতে, এ মন্ত্রনালয় একবার চালু হলে তা জনসংখ্যাগত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জনসংখ্যা বৃদ্ধির প্রচারণা এবং প্রচারগুলিকে জোরদার করার পরিকল্পনা এবং জনসংখ্যার তথ্যের উপর গবেষণা ও বিশ্লেষণ পরিচালনা করতে পারবে।

কোরিয়ান সরকার ভবিষ্যদ্বাণী করেছে যে সংশোধন বিল পাস হওয়ার প্রায় তিন মাস পরে প্রয়োজনীয় পদ্ধতি অনুসরণ করে এ নতুন মন্ত্রণালয় চালু হতে পারে।

এছাড়া, ‘প্রেসিডেনশিয়াল কমিটি অন এজিং সোসাইটি এন্ড পপুলেশন পলিসি’ জনসংখ্যা মন্ত্রণালয়ের অধীনে নতুন নামে কাজ করবে যার ইতোমধ্যে নাম রাখা হয়েছে ‘কমিটি অন পপুলেশন ক্রাইসিস রেসপন্স’। 

সরকারের পুনর্গঠন পরিকল্পনায় রাজনৈতিক বিষয়ের জন্য একজন নতুন মন্ত্রী তৈরি করাও অন্তর্ভুক্ত ছিল, যিনি সরকার ও সংসদের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানোর জন্য দায়ী থাকবেন এবং মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

তবে পুনর্গঠন পরিকল্পনায় লিঙ্গ সমতা ও পরিবার মন্ত্রনালয়ের বিলুপ্তিকরণ অন্তর্ভুক্ত ছিল না, যদিও ইউন সুক ইওল সরকারের বিতর্কিত অবস্থান থেকে নারীর অধিকারের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে এমন মন্ত্রণালয়কে সরানো হয়েছে।

সূত্র: দ্যা কোরিয়ান টাইমস