ঢাকা,  সোমবার  ২২ জুলাই ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

তারেক কাণ্ডে লণ্ডভণ্ড বিএনপি

প্রকাশিত: ০১:৩১, ১৬ জুন ২০২৪

তারেক কাণ্ডে লণ্ডভণ্ড বিএনপি

সংগৃহীত ছবি

ঈদের আগের তারেক জিয়া বিএনপিকে লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছেন। একদিকে যেমন ঢাকা মহানগর, চট্টগ্রাম মহানগর, বরিশাল মহানগরের আহ্বায়ক কমিটি বাতিল করা হয়েছে তেমনি বাতিল করা হয়েছে ছাত্রদলের কমিটি। কেন্দ্রীয় কমিটিতে নতুন মুখ ঢোকানো হয়েছে। আবার নতুন করে ছাত্রদলের ২৬০ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। পুরো বিএনপিতে চলছে এখন ভূমিকম্প। আর এই ভূমিকম্প নিজেই সৃষ্টি করেছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া।

হঠাৎ করেই বিএনপিতে এই ধরনের রদবদল এবং বিভিন্ন কমিটিতে লোকজনকে ঢোকানো এবং বাদ দেওয়ার বিষয় সম্পর্কে কোনো কিছুই জানেন না দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। এমনকি দলের মহাসচিবকেও অন্ধকারে রাখা হয়েছে। কাউকে কিছু না জানিয়ে লন্ডন থেকে বার্তা পাঠানো হচ্ছে এবং বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই ধরনের নির্দেশনাগুলোকে প্রেস বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশ করছেন। 

গত বৃহস্পতিবার থেকে এ পর্যন্ত বিএনপিকে রীতিমতো তছনছ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন যে, কমিটিতে রদবদলের ন্যূনতম নিয়ম নীতি অনুসরণ করা হচ্ছে না। বরং এ সব কিছু করা হচ্ছে চরম স্বেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে। এটি গঠনতন্ত্রের চরম লঙ্ঘন বলেও তারা মনে করছেন। 

উল্লেখ্য, বিএনপির ভেতর থেকে বলা হচ্ছে যে, কমিটি বিলুপ্ত করা হতে পারে, নতুন নেতৃত্ব আনা হতেই পারে, তবে সেটি হওয়া উচিত গঠনতন্ত্র মোতাবেক। তবে লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়ার সমর্থকরা বলছেন অন্য কথা। তারা বলছেন যে, ৭ জানুয়ারির নির্বাচন প্রতিরোধ করতে ব্যর্থ হয়েছে। ২৮ অক্টোবরের পর থেকে বিএনপি বড় ধরনের কোন আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। আর এই আন্দোলন গড়ে তোলার ব্যর্থতার কারণেই রদবদল হচ্ছে। যারা এই সময় নিষ্ক্রিয় ছিলেন, দলের জন্য ভূমিকা রাখতে পারেননি, তাদেরকে দল থেকে বহিষ্কার করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে বিএনপির ছাত্রদল, যুবদল কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। যদিও ছাত্রদলের কমিটি আজ নতুন করে গঠন করা হলেও যুবদলের কমিটি গঠন করা হয়নি। 

বিএনপির একাধিক সূত্রগুলো বলছে যে, তৃণমূলের সাথে কথা বলে তারেক জিয়া এই কমিটি গুলো ভাঙছেন এবং নতুন কমিটি গঠন করছেন। এই ঘটনার ফলে স্থায়ী কমিটিও পুনর্গঠনের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। ঈদের মধ্যেই বা ঈদের পরপরই স্থায়ী কমিটিতে নতুন মুখ আসতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়াও যে সমস্ত জেলাগুলো আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেননি, সেই সমস্ত জেলাগুলোর কমিটিও বাতিল করে দেওয়া হবে বলে বিএনপির নেতারা ধারণা করছেন। 

তবে এটি নিয়ে বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দের মধ্যে চরম অসন্তোষ এবং ক্ষোভ বিরাজ করছে। দলের মহাসচিবসহ স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্য ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। তারা ঢাকা থেকে দল পরিচালনা করেন কিন্তু কাদেরকে নেতৃত্বে আনা হচ্ছে, কাদেরকে বাদ দেওয়া হচ্ছে সে সম্পর্কে কোন ধারণাই নেই। তারেক জিয়া লন্ডনে বসে থাকেন। সেখান থেকে তিনি তার কিছু স্তাবকদের কাছ থেকে ভুল শুদ্ধ কিছু তথ্য পেয়ে দলের ভেতর তছনছ করছেন। এ ভাবে দল তছনছ করা কখনোই ইতিবাচক নয় বলে মনে করছেন বিএনপির প্রায় সব সিনিয়র নেতাই। 

তাদের মতে, এমনিতেই দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে একটা হতাশা সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা দলটি আন্দোলনের ব্যর্থতা, নেতাদের বিরুদ্ধে জেল জুলুম, নিপীড়ন চলছে। এ রকম অবস্থায় ঢালাও ভাবে দলের নেতৃত্ব পরিবর্তন কোন রাজনৈতিক দূরদর্শিতার পরিচয় নয় বলে তারা মনে করছেন। তবে তারেক জিয়ার এই তছনছের নীতি বিএনপিকে শেষ পর্যন্ত কোন পথে নিয়ে যাবে সে নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠছে। এই পরিস্থিতি চলতে থাকলে ভবিষ্যতে বিএনপির রাজনীতি করতে লোকজন আগ্রহ দেখাবে না। বিএনপিকে ধ্বংস্তুপে ফেলে দিচ্ছেন তারেক জিয়া।