ঢাকা,  সোমবার  ২২ জুলাই ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

গাজীপুরে বেড়েছে কসাইদের চাহিদা

প্রকাশিত: ১৭:৫৭, ১৭ জুন ২০২৪

গাজীপুরে বেড়েছে কসাইদের চাহিদা

ফাইল ছবি

প্রতিবছর কোরবানির ঈদ এলেই চাহিদা বাড়ে কসাইদের। কোরবানির পশু জবাই থেকে শুরু করে চামড়া ছাড়ানো, এমনকি মাংস কাটাকাটির পুরোটাই সিদ্ধ হস্তে করেন এই পেশার সঙ্গে জড়িতরা।

স্বল্প সময়ে আয়ও হয় বেশি। তাইতো পবিত্র ঈদুল আজহার সময় পেশাদার কসাইয়ের পাশাপাশি মৌসুমি কসাইয়ের কাজ করেন অনেকে।

টঙ্গী, সিলমুন, আউচপাড়া, মরকুন, মাজুখান, পূবাইল এলাকাগুলোতে ঘুরে বিভিন্ন কসাইদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, একটি পশু জবাই থেকে শুরু করে চামড়া ছাড়ানো ও মাংস কাটাকাটি করতে অন্তত ৩ থেকে ৫ জন কসাইয়ের একটি দলের প্রয়োজন হয়। কিন্তু কোরবানির ঈদের সময় ব্যাপক পরিমাণ পশু কোরবানি হওয়ায় শুধু পেশাদার কসাই দিয়ে এই চাহিদা মেটানো সম্ভব হয় না।

তাই এই সময় বিভিন্ন পেশার পাশাপাশি মৌসুমি কসাইয়ের কাজ করেন। পাশাপাশি গড়ে প্রত্যেকে এক থেকে দুই কেজি করে মাংস পান। অনেকে আবার কোরবানির পশুর উচ্ছিষ্ট অংশ (মাথা, লেজ, পায়ের হাড়, জিহ্বা, ভুঁড়ি) কসাইদের দিয়ে দেন। ফলে কোরবানির ঈদে স্বল্প সময়ে অন্যান্য পেশার তুলনায় অধিক লাভ হয় মৌসুমি কসাইদের।

পূবাইল এলাকায় কোরবানির গরু প্রক্রিয়াজাত করছিলেন মৌসুমি কসাইদের একটি দল। সেখানে কথা হয় কালীগঞ্জের বাসিন্দা মো. এনামুল সঙ্গে। তিনি বলেন, এনামুল পেশায় একজন গাড়িচালক। শুধু কোরবানির ঈদের সময় মৌসুমি কসাইয়ের কাজ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, প্রতি বছর কোরবানির ঈদ এলে কসাইয়ের কাজ করি। এই কাজ করতে ভালো যেমন লাগে তেমনি ভালো আয়ও হয়। তাই প্রতি বছর এই সময় আমরা দল বেধে এই কাজ করি। এছাড়া আমাদের সামর্থ্য না থাকায় কোরবানি দিতে পারি না। কিন্তু কসাইয়ের কাজ করলে কোরবানির মাংস পাওয়া যায়। এতে পরিবারের লোকজন অন্তত কোরবানির মাংস খেতে পারে। আমরা ১৬ জনের একটি দল ঈদের দিন কসাইয়ের কাজ করছি। একেকজনের গড়ে ৬-৭ হাজার টাকা করে আয় হয়েছে। সঙ্গে কোরবানির মাংস পেয়েছি ৩-৪ কেজি করে।

একই দলে মৌসুমি কসাইয়ের কাজ করছিলেন নাসির। পেশায় তিনি একজন ফল ব্যবসায়ী। তিনি বলেন, ঈদের সময় ঢাকায় মানুষজন থাকে না। লেগুনা চালিয়ে তেমন আয়ও হয় না। তাই কসাইয়ের কাজ করি। এতে কাজও করা হয়, আয়ও ভালো হয়। এছাড়া কোরবানির মাংসও পাওয়া যায়।

কুদাব এলাকার বাসিন্দা লিটন মিয়া জানান, আমরা কয়েকজন মিলে একটা গরু কিনেছি, আমরা তো আর কসাইয়ের মত কাজ করতে পারি না, এজন্য তিনজন কসাই নিয়োগ দিলাম, পারিশ্রমিক বাবদ তাদেরকে ১৫ হাজার টাকা দিতে হলো।