ঢাকা,  সোমবার  ২২ জুলাই ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

খাবার হোটেল ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ

প্রকাশিত: ২০:৪৬, ৮ জুলাই ২০২৪

খাবার হোটেল ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ

সংগৃহিত ছবি

গাজীপুরের কাপাসিয়ার টোক ইউনিয়নের ডুমদিয়াবাজারের কাজল মিয়ার জীবিকা নির্বাহের একমাত্র সম্বল খাবার হোটেলটি ভেঙে তছনছ করে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এমনকি পৈতৃক সম্পত্তির ওই জায়গায় নতুন করে ঘর নির্মাণ করতে দিচ্ছে না তাকে। সহায়সম্বল হারিয়ে হতদরিদ্র কাজল মিয়া পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। বিভিন্ন মহলে ধর্ণা দিয়ে হোটেলটি খোলার কোনো সমাধান না পেয়ে দিশাহারা কাজল মিয়া গত মঙ্গলবার স্থানীয় সাত ব্যক্তির নামে গাজীপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-১ এ মামলা করেছেন।

মামলাসূত্রে জানা যায়, ডুমদিয়া গ্রামের মৃত ছদরউদ্দিন মীরের ছেলে কাজল মিয়া (৪৬) বাড়ির পাশে ডুমদিয়াবাজারে পৈতৃক সম্পত্তিতে প্রায় ২০ বছর ধরে একটি টিনের ঘরে খাবার হোটেলের ব্যবসা করে আসছেন। কিন্তু প্রতিবেশীদের সঙ্গে জমিসংক্রান্ত বিরোধে গাজীপুর আদালতে একাধিক মামলা চলমান থাকায় তারা প্রায়ই হোটেলটি দখল করে নেওয়ার হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিল। গত ২৯ জুন কাজল মিয়া দুজন মিস্ত্রি নিয়োগ করে হোটেলটি মেরামত করতে গেলে প্রতিপক্ষের লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে এবং টাকা-পয়সা ও বেশ কিছু মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে মীমাংসার জন্য স্থানীয় বিভিন্ন মহলে ধর্ণা দিয়েও তিনি কোনো সমাধান পাননি। তাই বিষয়টির আইনগত সমাধান চেয়ে গত মঙ্গলবার গাজীপুর আদালতে স্থানীয় আ. কাদির (৩৮), শরীফুল আলম (৩৫), হাবিবুর রহমান (৩২), হাদিউল ইসলাম (৪৮), মো. মোশারফ (৩২), মো. শাহাবউদ্দিন (৩৮) ও ফজলুল করিমের (৬৫) নামে একটি মামলা করেন। পরে আদালত পিবিআই গাজীপুরকে এ বিষয়ে তদন্ত করে আদালতে একটি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শরীফুল আলম জানান, ঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের বিষয়টি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। ২০০৭ সাল থেকে কাজল মিয়া ও তার ভাইদের সঙ্গে জমিসংক্রান্ত একাধিক মামলা আদালতে চলমান থাকায় ওই জমিতে নতুন করে ঘর করতে কাজল মিয়াকে তারা নিষেধ করেছেন। 

এ বিষয়ে পিবিআই গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান জানান, তিনি মামলার কপি এখনো হাতে পাননি। কপি হাতে পেলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন।