শনিবার  ২৫ জুন ২০২২,   আষাঢ় ১১ ১৪২৯

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

টঙ্গীর সড়কে ময়লার স্তুপ, ভোগান্তি চরমে

প্রকাশিত: ০৭:৪০, ২২ মে ২০২২

টঙ্গীর সড়কে ময়লার স্তুপ, ভোগান্তি চরমে

গাজীপুরের টঙ্গীতে সড়কের পাশেই ময়লার ভাগার। ময়লার পঁচা গন্ধে চরম ভোগান্তি নিয়ে চলাফেরা করছে এলাকাবাসীসহ পথচারীরা।
টঙ্গী-কালীগঞ্জ সড়কে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার উড়াল সেতুর পশ্চিম পাশেই এ ময়লার স্তুপ। আঞ্চলিক এ সড়কটির পাশে ময়লা-আর্বজনা ফেলায় তা একপাশ সরু হয়ে পড়েছে।
এ সড়কে শত শত পোশাক শ্রমিক, ওষুধ কারখানার কর্মকর্তা-কর্মচারী ও পথচারীরা নাকে রুমাল চেপে চলাচল করতে হচ্ছে। সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও যথাযথ তদারকি না থাকায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন নগরবাসী।
নগরবাসীর অভিযোগ, দুর্গন্ধে এ সড়কের একপাশ দিয়ে চলাচল করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। সড়কের বড় একটি অংশে ময়লার স্তুপ থাকায় প্রতিনিয়ত যানজটের সৃষ্টি হয়। পাশেই টঙ্গী রেলওয়ে জংশন দিয়ে ট্রেন যাতায়াতকালে সড়কটি বন্ধ থাকে। এতে ওই এলাকার যানবাহনের যাত্রীদের দুর্গন্ধে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়।
সরেজমিনে দেখা যায়, সিটি কর্পোরেশনে নির্দিষ্ট কোনো জায়গা না থাকায় টঙ্গীর বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডের বাসা বাড়ির উচ্ছিষ্ট ময়লা-আর্বজনা পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা এখানে ফেলে যাচ্ছেন। ময়লা-আর্বজনা জমা হতে হতে এক সময় সড়কে উপচে পড়ছে। ময়লার স্তুপের পাশেই শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার উড়াল সেতু, সানোফী ওষুধ কারখানা, আঞ্চলিক কর কমিশনারের কার্যালয় ও সমাজ সেবা অধিদপ্তর। সেতু দিয়ে দৈনিক হাজারো যাত্রী ও মালবাহী গাড়ি পারাপার হচ্ছে। এছাড়া কারখানাগুলোতে জীবন রক্ষাকারী ওষুধ ও মুক্তা পানি তৈরি করা হচ্ছে। ময়লার স্তুপ এখান থেকে না সরালে জীবাণুর প্রভাবে এসব অতিসংবেদনশীল উৎপাদনমুখী কারখানাগুলোর উৎপাদন ব্যবস্থা বাধাগ্রস্ত হতে পারে বলে অনেকেই আশঙ্কা করছেন।
টঙ্গী স্টেশন রোড এলাকার বাসিন্দা সানজিদ আহম্মেদ মিথুন। স্টেশন রোড থেকে উড়াল সেতু ব্যবহার করে মরকুন যাচ্ছিলেন। পথে আলাপ হয় তার সঙ্গে। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, প্রায় এক বছর যাবত এ দুর্ভোগ পোহাচ্ছি আমরা। সড়কের পাশে ময়লার স্তুপের সামনে যানজট সৃষ্টি হলে ভোগান্তি আরও বাড়ে।
তিনি আরও বলেন, ভোর থেকেই এখানে ময়লা আসতে থাকে। কয়েকদিনের জড়ো হওয়া ময়লা না নেওয়ায় দুর্গন্ধ সৃষ্টি হচ্ছে। ফুটপাতের জায়গায় রাখা এসব ময়লা আবর্জনা সড়কে উপচে পড়েছে। বর্তমানে বর্ষাকাল বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির পানিতে পঁচা দুর্গন্ধযুক্ত ময়লা-আবর্জনা এলাকার সড়ক একাকার হয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি বেশ কয়েকবার স্থানীয় কাউন্সিলরকে জানালেও এ সমস্যার সমাধান হয়নি।
এ ব্যাপারে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল হাসেমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায় নি।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সহকারী প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মো. আরিফুর রহমান বলেন, আমাদের নিদিষ্ট কোনো জায়গা না থাকায় ওখানে ময়লা ফেলতে হচ্ছে। তবে খুব দ্রুতই স্থায়ী সমাধানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

গাজীপুর কথা