সোমবার  ০৫ ডিসেম্বর ২০২২,   অগ্রাহায়ণ ২১ ১৪২৯,  ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

যে সময় গ্রিন টি খাওয়া ঠিক নয়

প্রকাশিত: ১৬:৩০, ১২ নভেম্বর ২০২২

যে সময় গ্রিন টি খাওয়া ঠিক নয়

ফাইল ছবি

মেদ ঝরিয়ে রোগা হওয়ার অন্যতম উপায় হলো গ্রিন টি খাওয়া। ওজন কমানো ছাড়াও আরো অনেক রোগের চটজলদি সমাধান লুকিয়ে রয়েছে এই চায়ে। নিয়ম মেনে গ্রিন টি খেলে ক্যান্সার, অ্যালজাইমার্স, স্ট্রোক ও ডায়াবেটিসের মতো রোগের ঝুঁকি কমে। ত্বকে বয়সের ছাপ ঠেকিয়ে রাখতেও গ্রিন টির জুড়ি মেলা ভার। তবে ঠিক মতো উপকার পেতে কতটা গ্রিন টি খাওয়া জরুরি তা অনেকেই জানেন না। 

সারা দিনের কাজ সারতে সারতে চা খাওয়ার হিসাব থাকে না অনেকেরই। গ্রিন টি শরীরের জন্য নিঃসন্দেহে উপকারী। তবে প্রয়োজনের অতিরিক্ত কিছু না খাওয়া ভালো। গ্রিন টি পলিফেনল ও ফ্ল্যাভোনয়েডের মতো অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টে পরিপূর্ণ, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্যে করে। 

ত্বক এবং চুলের স্বাস্থ্যের জন্যেও উপকারী এই গ্রিন টি। তবে উপকারী হলেও দিনের যে কোনো সময় গ্রিন টি খাওয়া যায় না। তাতে সমস্যা আরো বাড়বে।

>>> অনেকেই মনে করেন, ভরপেট খাবার খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গ্রিন টি খেলে শরীরের ক্যালোরি নাকি অনেকটাই ঝরে যায়। এই ধারণা মোটেই ঠিক নয়। প্রোটিন পরিপাক হতে শরীরের একটি নির্দিষ্ট সময় লাগে। সেই সময়টি শরীরকে দিতে হবে। গ্রিন টি এই প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত সৃষ্টি করে। খাওয়ার পর এই চা না খাওয়াই ভালো।

>>> খালি পেটে গ্রিন টি খাওয়া ঠিক নয় একেবারে। খালি পেটে এই চা খেলে পাকস্থলীতে অ্যাসিডের মাত্রা বেড়ে যায়। ফলে হজমে গন্ডগোল হয়। তাই সকালে হালকা কিছু খেয়ে তার পরেই এই চা খান। খালি পেটে এই চা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা হওয়ার একটা আশঙ্কা থাকে।

>>> অনেকেই সকালে চা খাওয়ার পর ওষুধ খান। গ্রিন টি খাওয়ার পর ওষুধ খাবেন না। ওষুধের মধ্যে থাকা রাসায়নিক যৌগ গ্রিন টি-র সঙ্গে বিক্রিয়া করে বদহজমের সমস্যা হতে পারে।

>>> তাড়াহুড়োয় গ্রিন টি-তে চুমুক দিলে লাভ হয় না। আয়েশ করে ধীরে ধীরে এই চা খেলে তবেই বিপাকহার বাড়বে। নয়তো পেটের সমস্যা হতে পারে।

সারা দিনে কত বার গ্রিন টি খেতে পারেন?

দিনে পাঁচ থেকে ছয় বার গ্রিন টি খাওয়া মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়। গ্রিন টিতে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট যেমন থাকে, তেমনি কিন্তু ক্যাফেনও থাকে। কাজেই তিন বারের বেশি গ্রিন টি খেলে রাতে ঘুমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এমনকি শরীরের অতি প্রয়োজনীয় পদার্থগুলোও বেরিয়ে যেতে পারে। কাজেই দিনে দুই থেকে তিন বার গ্রিন টি খান। এতে উল্টোপাল্টা খাওয়ার খিদে একটু কমবে, সেই সঙ্গে ওজনও ঝরবে। তবে বদহজম ও ইরিটেবল বাওয়েল সিন্ড্রোমের সমস্যা থাকলে গ্রিন টি এড়িয়ে চলাই ভালো।