ঢাকা,  সোমবার  ২২ জুলাই ২০২৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

ঈদে সুস্থ থাকার টিপস

প্রকাশিত: ১৮:৪৭, ১৭ জুন ২০২৪

ঈদে সুস্থ থাকার টিপস

ফাইল ছবি

আজ উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল আজহা। ঈদ উপলক্ষ্যে সবার ঘরেই পোলাও, কোরমা ও নানা ধরনের ভারি খাবার রান্না করা হচ্ছে।

এছাড়া আত্মীয় ও বন্ধুদের বাসাতেও ঈদে দাওয়াত থাকে। সব মিলিয়ে ঈদ ও এর পরবর্তী দিনগুলোতে সবাই কমবেশি সুস্বাদু ও মজাদার খাবার খাওয়ার মধ্যেই থাকেন।

আর সুস্বাদ খাবার সামনে পেলে জিহ্বা নিয়ন্ত্রণে রাখা বেশ কষ্টকর। তাই অতিরিক্ত খাওয়ার কারণে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। ফলে বদহজম, গ্যাস্ট্রিক, ডায়রিয়া কিংবা ফুড পয়জনিংয়ের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ ধরনের সমস্যা এড়াতে কিছু সতর্কতা মেনে চলা জরুরি।

ভেবেচিন্তে খাদ্যতালিকা তৈরি করুন :দিনের খাদ্যতালিকতায় প্রোটিন, শাকসবজি এবং গোটা শস্য যাতে থাকে তা নিশ্চিত করুন। শুধুমাত্র মাংস না খেয়ে শরীর যাতে প্রয়োজনীয় পুষ্টি পায় সেজন্য বাড়তি কিছু খাবার রাখুন।

চর্বিহীন মাংস বেছে নিন: গরু- খাসির মাংস খান তবে চর্বিছাড়া। মাংসে লেগে থাকা অতিরিক্ত চর্বি সরিয়ে ফেলুন। অস্বাস্থ্যকর চর্বি কমাতে ভাজার পরিবর্তে গ্রিলিং, বেকিং বা স্টিমিং করে মাংস খেতে পারেন। চর্বিহীন মাংস কেবল প্রয়োজনীয় প্রোটিনই সরবরাহ করে না বরং হৃদপিণ্ডের স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও সাহায্য করে।

শাকসবজি যুক্ত করুন: শাকসবজি ভিটামিন, খনিজ এবং ফাইবার সমৃদ্ধ, যা হজম এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যে সহায়তা করে। উৎসবের দিনগুলোতে মাংসের নানা পদের পাশাপাশি সবজির পদ, সালাদ রাখুন। এতে খাবারে ভারসাম্য বজায় থাকবে।

ছোট প্লেটে খান: বেশি খাওয়ার লোভ এড়াতে খাওয়ার জন্য ছোট প্লেট ব্যবহার করুন।

পানি ও পানীয় : সারাদিন প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। হাইড্রেটেড থাকা হজমে সহায়তা করে এবং অতিরিক্ত খাওয়া রোধ করতে সাহায্য করে। চিনিযুক্ত পানীয় এড়িয়ে চলুন। পানি, ভেষজ চা, ফলের রস রাখুন খাদ্যতালিকায়।

চিনিযুক্ত খাবার এবং ডেজার্ট সীমিত করুন: মিষ্টান্ন ঈদ উদযাপনের একটি প্রধান উপাদান। তবে অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবার স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। খেজুর বা মধুর মতো প্রাকৃতিক মিষ্টি দিয়ে তৈরি ডেজার্ট খেতে পারেন। শরীরে পুষ্টির জোগান দিতে দই রাখতে পারেন।

মনোযোগ দিয়ে খাওয়া: ধীরে ধীরে ও মনোযোগ সহকারে খাওয়া অতিরিক্ত খাওয়া প্রতিরোধ করে। সুস্থ থাকতে ধীরে ধীরে খাওয়ার অভ্যাস করুন।

শারীরিক কার্যক্রম বজায় রাখুন : ঈদ উৎসবের মধ্যে শরীরচর্চা করতে ভুলে যাবেন না। খাওয়ার পরে হাঁটাহাঁটি করুন। অন্য কাজকর্মে সক্রিয় থাকুন। শারীরিক ক্রিয়াকলাপ হজমে সহায়তা করে এবং অতিরিক্ত ক্যালরি ঝরাতে ভূমিকা রাখে।