• বুধবার   ২৭ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ১১ ১৪২৮

  • || ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

শান্তি পুরস্কার শহীদদের উৎসর্গ করেন বঙ্গবন্ধু

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ১৫ অক্টোবর ২০২০  

জুলিও কুরি পুরস্কার আমার একার জন্য নয় বলে ঘোষণা করেন সদ্য পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি বলেন, ‘বিশ্ব শান্তি পরিষদের জুলিও কুরি শান্তি পুরস্কার শুধু তার একার নয়। যে লাখো শহীদের রক্তে বাংলাদেশ স্বাধীন, এ সম্মান তাদের দেওয়া হয়েছে।’ সংবাদ সংস্থা এনা এই সংবাদ দেয়। ১৯৭২ সালের ১৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় গণভবনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি জুলিও কুরি শান্তি পুরস্কার লাভের জন্য বঙ্গবন্ধুকে মাল্যভূষিত করে। এ সময় বঙ্গবন্ধু এসব কথা বলেন।

সংগঠনের সভাপতি শেখ শহিদুল ইসলাম বঙ্গবন্ধুর গলায় মাল্যদান করার পর বলেন, ‘বিশ্ব শান্তির সপক্ষে বঙ্গবন্ধুর কাজের স্বীকৃতি হিসেবে  বিশ্ব শান্তি পরিষদ তাকে যে সম্মানে ভূষিত করেছে, গোটা জাতি আজ সে জন্য গর্ববোধ করছে। এই উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুকে মাল্যদান করতে পেরে ছাত্রলীগ নিজেকে ধন্য মনে করছে।’ এর জবাবে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষ বর্বর পাকিস্তানি শাসকদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। তাদের অবদান স্মরণেই এই শান্তি পুরস্কার।’

দৈনিক বাংলা ১৬ অক্টোবর রেডক্রস প্রধানকে বঙ্গবন্ধুর তারবার্তা

পাকিস্তানে আটক বাঙালিদের দিকে নজর দিতে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রেডক্রসের প্রধান মার্সেল নেভাইলকে তারবার্তা পাঠান। এনা ও বাসস এ সংবাদ প্রকাশ করে। পাকিস্তানে আটক বাঙালিদের ওপর নির্যাতন বন্ধ এবং দ্রুত তাদের দেশে ফেরত আনার ব্যাপারে হস্তক্ষেপ কামনা করে আন্তর্জাতিক রেডক্রস কমিটির প্রধানের কাছে তারবার্তাটি পাঠানো হয়। আইসিআরসি প্রধান মার্সেল নেভাইলের কাছে পাঠানো তারবার্তায় বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানে আটক বাঙালিদের ওপরে নির্যাতনের প্রতি তার সুদৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি তারবার্তায় জানান, সেখানে বাঙালিরা অসহনীয় ও অমানবিক অবস্থার মধ্যে বাস করছে। গত মাসে (সেপ্টেম্বর) জেনেভায় নেভাইলের সঙ্গে তার কথাবার্তার উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘বাংলাদেশে বসবাসকারী বাঙালি বংশোদ্ভূত ও পাকিস্তানের প্রতি অনুগত লোকদের ভালো-মন্দের ব্যাপারে আন্তর্জাতিক রেডক্রস সর্বশেষ আগ্রহ দেখিয়েছে। পাকিস্তানে আটক বাঙালিদের জানমালের নিরাপত্তা বিধান ও কল্যাণ সাধনে মনোযোগী হয়ে রেডক্রস অনুরূপ তাৎপর্যবহ ভূমিকা পালন করতে পারে।’

উল্লেখ্য, এর আগে জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেলের কাছে একটি তারবার্তা পাঠিয়ে পাকিস্তানে আটক বাঙালিদের নিরাপত্তা ও স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ জানান বঙ্গবন্ধু। জাতিসংঘ প্রধানের কাছে পাঠানো তারবার্তায় বঙ্গবন্ধু উল্লেখ করেন যে, সাম্প্রতিক খবরে প্রকাশ অধিকাংশ বাঙালি জীবিকা অর্জনের ব্যবস্থা থেকে সম্পূর্ণভাবে বঞ্চিত এবং বর্তমানে সম্পূর্ণ নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। সেনাবাহিনীর বাঙালি লোকজনদের অন্তরীণ শিবিরে আটক রাখা হয়েছে। সেখানে তাদের অমানুষিক অবস্থায় রাখা হয়েছে। বেসামরিক বাঙালিদেরও বিশেষ শিবিরে আটক রাখার খবর পাওয়া গেছে।ইত্তেফাক

বিদ্যুৎকর্মীদের সমস্যা নিরসনের নির্দেশ

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ ইলেকট্রিকাল ওয়ার্কার্স অ্যান্ড এমপ্লয়িজ ফেডারেশনের পেশাগত সমস্যা পরীক্ষা ও প্রতিকারের সুপারিশ পেশ করার জন্য একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন। বন্যা নিয়ন্ত্রণ মন্ত্রী খন্দকার মোশতাক আহমেদের নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করার কথা বলা হয়। কমিটির সদস্য হিসেবে প্রাকৃতিক সম্পদ ও বিজ্ঞান বিষয়ক মন্ত্রী ও ভূমি রাজস্ব মন্ত্রীকে নেওয়া হয়। বার্তা সংস্থার বরাতে সংবাদপত্রগুলো এ খবর  প্রকাশ করে। খবরে বলা হয়, ১৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় বাংলাদেশ পাওয়ার ওয়ার্কার্স অ্যান্ড এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের একটি প্রতিনিধি দল বঙ্গভবনে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। এ সময় বঙ্গবন্ধু তাদের কথা শোনেন ও এই নির্দেশ দেন। সাক্ষাতের সময় অর্থমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা