শনিবার  ২০ আগস্ট ২০২২,   ভাদ্র ৪ ১৪২৯,  ২২ মুহররম ১৪৪৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

বিশ্বে দূষণে বছরে ৯০ লাখ মানুষের মৃত্যু: গবেষণা

প্রকাশিত: ০৫:২০, ২০ মে ২০২২

বিশ্বে দূষণে বছরে ৯০ লাখ মানুষের মৃত্যু: গবেষণা

বিষাক্ত বায়ু ও বর্জ্যের দূষণের কারণে ২০১৫ সাল থেকে প্রতিবছর বিশ্বজুড়ে ৯০ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন; যা বিশ্বব্যাপী প্রতি ৬ জনে ১ জন মানুষের মৃত্যুর সমান। এদের প্রায় তিন-চতুর্থাংশ মারা গেছেন বায়ুদূষণে; যা যুদ্ধ, ম্যালেরিয়া, এইচআইভি, যক্ষ্মা বা মাদকের কারণে বার্ষিক বৈশ্বিক মৃত্যুর চেয়ে এ হার বেশি।

সম্প্রতি ল্যানসেট প্ল্যানেটারি হেল্‌থে প্রকাশিত ‘দ্যা ল্যানসেট কমিশন অন পলিউশন অ্যান্ড হেল্‌থ’ এর এক গবেষণায় এসব তথ্য তুলে ধরে বলা হয়েছে, বিশ্বজুড়ে তীব্র দারিদ্র্যতার কারণে সৃষ্ট দূষণে মৃত্যুর সংখ্যা কমলে সেই অর্জন ম্লান হয়ে গেছে শিল্প দূষণজনিত কারণে মৃত্যু বৃদ্ধি পাওয়ায়।

গবেষণাটি সুইস এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কোঅপারেশন (এসডিসি) ও মিনিস্ট্রি অব এনভায়রনমেন্ট অব সুইডেন এবং গ্লোবাল অ্যালায়েন্স অন হেল্‌থ অ্যান্ড পলিউশন (গ্যাপ) ও পিওর আর্থ-এর সহযোগিতায় করা হয়েছে।

গবেষণায় বলা হয়, ৯০ লাখ মৃত্যুর প্রায় ৭৫ শতাংশই বায়ু দূষণের কারণে। পারিপার্শ্বিক বায়ু দূষণের কারণে ২০১৯ সালে ৪৫ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে, ২০১৫ সালে যা ছিল ৪২ লাখ এবং ২০০০ সালে ছিল ২৯ লাখ। বিপজ্জনক রাসায়নিক দূষণের কারণে ২০০০ সালে মৃত্যুর পরিমাণ ছিল ৯ লাখ, সেই সংখ্যা ২০১৫ সালে বৃদ্ধি পেয়ে ১৭ লাখ এবং ২০১৯ সালে ১৮ লাখে এসে দাঁড়িয়েছে; সাথে সিসা দূষণের কারণেই কেবল ৯ লাখ মানুষ অকালে মারা গেছে। সব মিলিয়ে, এই নিত্যনতুন ধরনের দূষণসমূহ গত দুই দশকে ৬৬% বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০০০ সালের আনুমানিক ৩৮ লাখ মৃত্যু থেকে যা ২০১৯ সালে ৬৩ লাখ মৃত্যুতে এসে ঠেকেছে।

রিপোর্টটির প্রধান লেখক রিচার্ড ফুলার বলেন, জনস্বাস্থ্যের উপর দূষণ ব্যাপকভাবে প্রভাব ফেলে, আর এই মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাবে বোঝা নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলো ধুঁকে ধুঁকে বয়ে বেড়াচ্ছে। এতসব মারাত্মক স্বাস্থ্যগত, সামাজিক ও অর্থনৈতিক ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন মহলের দূষণ নিরসনের দিকে সে রকম কোনো নজর নেই।

তিনি আরও বলেন, ২০১৫ সালের পর থেকে এখন পর্যন্ত দূষণ প্রতিরোধ করে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় অর্থ বরাদ্দ ও নজরদারি খুব সামান্যই বেড়েছে, নানান গবেষণায় দূষণের কারণে স্বাস্থ্যঝুঁকি ও এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে শঙ্কা বৃদ্ধি বিষয় উঠে আসা সত্ত্বেও তা নিরসনে যথেষ্ট উদ্যোগের অভাব আছে।

ল্যানসেট কমিশনের তথ্য অনুসারে, দূষণের কারণে অস্বাভাবিক মাত্রার মৃত্যু আমাদের আর্থিক ক্ষতির দিকেও ঠেলে দিচ্ছে। ২০১৯ সালে বিশ্বব্যাপী ৪.৬ ট্রিলিয়ন ইউএস ডলার ক্ষতি হয়েছে যা বৈশ্বিক অর্থমূল্যের ৬.২%। গবেষণায় আরও দেখা গেছে, ৯২% দূষণজনিত মৃত্যু এবং দূষণের কারণে আর্থিক ক্ষতির বোঝা সবচেয়ে বেশি হচ্ছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর ঘাড়ে, যা প্রচণ্ড অসমতার সৃষ্টি করছে।

এ বিষয়ে গবেষণাপত্রটির সহলেখক বোস্টন কলেজের গ্লোবাল পাবলিক হেল্‌থ প্রোগ্রাম অ্যান্ড গ্লোবাল পলিউশন অবজারভেটরি পরিচালক অধ্যাপক ফিলিপ ল্যান্ডরিগান বলেন, মানব ও জীবজগতের স্বাস্থ্যের উপর বিদ্যমান সবচেয়ে বড় হুমকি হচ্ছে দূষণ যা টেকসই আধুনিক সমাজকে বিপন্ন করে তুলছে। দূষণ প্রতিরোধ করা গেলে জলবায়ু পরিবর্তন বিলম্বিত করা যেতে পারে- জীবজগতের জন্য দ্বিগুণ উপকারিতা অর্জন হবে এবং আমাদের এই রিপোর্টটি আহ্বান করছে, জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে নির্ভরতা অতিদ্রুত স্থানান্তর করে ব্যাপক পরিমাণে বিশুদ্ধ, নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে নির্ভরতা আনতে হবে।

অন্যদিকে গ্লোবাল অ্যালায়েন্স অন হেল্‌থ অ্যান্ড পলিউশনের কার্যনির্বাহী পরিচালক ও গবেষণাপত্রটির অপর সহলেখক র‍্যাচেল কুপকা বলেন, দূষণ, জলবায়ু পরিবর্তন এবং জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি নিবিড়ভাবে সম্পর্কিত। এই সম্মিলিত হুমকিকে সফলভাবে মোকাবিলা করতে হলে বৈশ্বিক সমর্থন, আনুষ্ঠানিক বিজ্ঞান-নীতিনির্ধারণী সম্বলিত একটি ইন্টারফেস প্রয়োজন যা মধ্যবর্তিতা করবে, গবেষণায় প্রভাব রাখবে এবং তহবিল গঠন করবে। দূষণকে এতকাল ধরে প্রান্তিক ইস্যু হিসেবে দেখা হয়েছে যা কেবল উপ-জাতীয় ও জাতীয় পর্যায়ে বিবেচনা করা হতো বা কখনো কখনো কেবল উচ্চআয়ের দেশগুলোর আঞ্চলিক নীতিনির্ধারণী আলোচনার অংশ। তারপরও, এখন পরিষ্কার যে দূষণ একটি বৈশ্বিক হুমকি, এবং এটি যেভাবে ছড়িয়ে পড়ছে ও স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করছে তাতে এটি স্থানীয় সীমা ছাড়িয়ে গেছে। এখন নিত্যনতুন দূষণ নিরসনে বৈশ্বিক পদেক্ষপ প্রয়োজন।

গবেষণায় বলা হয়, দূষণে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হওয়া ১০টি দেশের বেশিরভাগই আফ্রিকার। দেশগুলো হলো চাদ, মধ্য আফ্রিকা প্রজাতন্ত্র, নাইজার, সোলোমন দ্বীপপুঞ্জ, সোমালিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, উত্তর কোরিয়া, লেসোথো, বুলগেরিয়া ও বুরকিনা ফাসো।

গবেষণাপত্রের লেখকরা দূষণজনিত অকাল মৃত্যু ঠেকাতে নীতি নির্ধারকদের প্রতি ৮টি পরামর্শও দিয়েছেন।

গাজীপুর কথা