বৃহস্পতিবার  ১১ আগস্ট ২০২২,   শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯,  ১৩ মুহররম ১৪৪৪

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

প্রেমের টানে বরিশাল এসে মার খেলেন ভারতীয় যুবক

প্রকাশিত: ২০:২০, ৪ আগস্ট ২০২২

প্রেমের টানে বরিশাল এসে মার খেলেন ভারতীয় যুবক

প্রেমের টানে বরিশাল এসে মার খেলেন ভারতীয় যুবক

প্রেমের টানে প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে বরিশালে এসেছেন প্রেমকান্ত নামে ভারতের দক্ষিণ তামিলনাড়ুর এক যুবক। তবে প্রেমিকার ‘দেশি প্রেমিকের’ হাতে মার খেতে হয়েছে তাকে। পরে বরিশাল মেট্রোপলিটনের এয়ারপোর্ট থানা পুলিশ বাসের ভাড়া দিয়ে তাকে ঢাকায় ভারতীয় দূতাবাসে পাঠানোর ব্যবস্থা করলেও তিনি বরিশালেই থেকে যান।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) দুপুরে ওই যুবককে বরিশাল নগরীতে দেখার পর সাংবাদিকরা তার সাক্ষাৎকার নেওয়ার অনুরোধ জানালে তিনি সবার কাছে মাফ চেয়ে স্থান ত্যাগ করেন। এদিকে, এই ভারতীয় যুবক বরিশালে থেকে যাওয়ায় তাকে নিয়ে উদ্বিগ্ন পুলিশ।

সর্বশেষ আজ সারা দিন প্রেমকান্ত বরিশাল নগরীর বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ান। দুপুরে তাকে নগরীর বান্দ রোডে সাংবাদিকরা দেখে সাক্ষাৎকার দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু কোনোভাবেই সাক্ষাৎকার দিতে রাজি হননি। আধঘণ্টা ধরে তাকে বিভিন্নভাবে অনুরোধ জানানো হলেও কথা বলেননি। তার মুখ থেকে একটি শব্দই বের হয়েছে। তা হচ্ছে ‘প্লিজ প্লিজ’। এ সময় সাংবাদিকদের কাছে হাত জোড় করে মাফ চান প্রেমকান্ত। এরপর ওই স্থান ত্যাগ করেন।

এয়ারপোর্ট থানার ওসি কমলেশ চন্দ্র হালদার ভারতীয় এই যুবকের বরাত দিয়ে বলেন, ‘প্রেমকান্ত নেটওয়ার্কিং ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেছে। তবে তার শখ হচ্ছে নৃত্য। আর নাচের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করতেন। তার নাচ দেখে মুগ্ধ হন বরিশালের একটি সরকারি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী। তার বাড়ি বরগুনায়। এরপর ধীরে ধীরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই সম্পর্ক গড়ে ওঠে তাদের দুই পরিবারের মাঝেও। এভাবে তিন বছর ধরে চলে তাদের সম্পর্ক। কখনও ফেসবুকে কখনও মোবাইলে কথা বলার মাধ্যমে তাদের সম্পর্ক আরও গভীর হয়ে ওঠে। প্রেমিকাকে সামনাসামনি দেখার ইচ্ছে জাগে প্রেমকান্তের। এরপর ভারত থেকে ভিসা নিয়ে বৈধপন্থায় বাংলাদেশের বরিশালে আসেন।’

ওসি বলেন, ‘প্রেমকান্ত ২৪ জুলাই নগরীর একটি রেস্তোরাঁয় প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করেন। কিন্তু ওই মেয়ের সঙ্গে বরিশাল নগরীর আরেকটি ছেলের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। বিষয়টি ওই প্রেমিক জানতে পেরে ২৫ জুলাই নগরীর চৌমাথা এলাকায় প্রেমকান্তকে পেয়ে মারধর করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভারতীয় যুবকের অভিযোগ, তার সঙ্গে থাকা টাকাও ছিনিয়ে নিয়েছে। এ ঘটনার পরপরই প্রেমকান্তকে পুলিশি নিরাপত্তায় আনা হয়।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘এরপর প্রেমকান্তের বিষয়টি ঢাকায় অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাসকে জানানো হয়। তারা তার সঙ্গে কথা বলেন এবং ঢাকার দূতাবাসে পাঠিয়ে দেওয়ার অনুরোধ জানান। তাদের নির্দেশনা মোতাবেক তাকে ৩১ জুলাই ঢাকার বাসে তুলে দেওয়া হয়। এমনকি তাকে ভাড়াও দিয়ে দেই। প্রেমকান্ত জানিয়েছিল, সে ঢাকা থেকে বিমানযোগে তার গন্তব্যে যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম সে বরিশাল নগরীতে রয়েছে। কিন্তু এটা তো সে ঠিক করেনি। এখন তো আমার সন্দেহ হচ্ছে সে কোনও অপরাধ চক্রের সঙ্গে জড়িত কিনা।’ তার অবস্থান নিশ্চিত হলে জানানোর অনুরোধ জানান ওসি।

এদিকে, বুধবার দেশের এক টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সাবলীল ইংরেজিতে প্রেমকান্ত বলেন, ‘আমাদের তিন বছরের সম্পর্ক। আমি শুধু তাকে সরাসরি দেখতে এসেছি। আমি এখানকার কোনও স্থানই চিনি না, কাউকে জানিও না।’