• শুক্রবার   ২০ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩

গাজীপুর কথা

চিত্রনায়িকা শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার, স্বামী গ্রেফতার

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০২২  

নিখোঁজের একদিন পর চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুর (৪৫) বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার সকাল ১০টায় কেরানীগঞ্জ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে উদ্ধার হওয়া মরদেহ নেওয়া হয় ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালে।

শিমুর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান। তিনি বলেন, “নিখোঁজের পর অভিনেত্রীর ভাই শহিদুল ইসলাম খোকন আমার কাছে ছুটে আসেন। বলেন, শিমুকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তখন আমি একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে ফোন করি তথ্যের জন্য। পরে খোকন মিটফোর্ড হাসপাতলে গিয়ে শিমুর মরদেহ শনাক্ত করে আমাকে ফোন করে জানায়।”

এ বিষয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি মো. আবু সালাম মিয়া বলেন, “সোমবার সকাল ১০টার দিকে কেরানীগঞ্জ থেকে রাইমা ইসলাম শিমু নামে এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহ মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে নেয়া হয়।”

এদিকে নায়িকা রাইমা ইসলাম শিমু হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার স্বামী শাখাওয়াত আলী নোবেলসহ দুইজনকে র‍্যাব গ্রেফতার করেছে বলে জানিয়েছেন নায়ক জায়েদ খান। রক্তমাখা গাড়িও উদ্ধার হয়েছে বলে দাবী তার। এ ঘটনায় দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন শিমুর ভাই শহিদুল ইসলাম খোকন। নিহতের ভাইকে সঙ্গে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে নায়ক জায়েদ খান বলেন, “চলচ্চিত্র শিল্প সমিতির নির্বাচনকে নিয়ে নোংরা রাজনীতি চলছে। শিমু হত্যা ইস্যুতে তাঁকে ফাঁসানোর চেষ্টা হচ্ছে বলেও দাবী তার।”

সোমবার দিবাগত গভীর রাতে চিত্রনায়ক জায়েদ খানের বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান নায়িকা শিমুর ভাই শহিদুল ইসলাম খোকন। এ হত্যাকাণ্ডের সন্দেহের তীর অভিনেতা জায়েদ খানের দিকে থাকায় রাতেই নিজ বাসভবনের সামনে সংবাদ সম্মেলন করেন জায়েদ।

শিমুর ভাই জানান, প্রথম আসামি আমার বোন জামাই নোবেল। সে এবং ফরহাদ নামের একজন এ কাজ করেছে। তাদেরকে র‍্যাব গ্রেফতার করেছে, কেরাণীগঞ্জ থানার ওসি আমাদের হেল্প করেছেন। এর আগে আমার কাছে লাশ শনাক্ত করার জন্য একটা ফোন আসে কেরাণীগঞ্জ থেকে। সেখানে গিয়ে আমি নিজে আমার বোনের লাশ শনাক্ত করেছি।

জায়েদ খান প্রসঙ্গে খোকন বলেন, “এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আল্লাহকে হাজির-নাজির মানি, এটা পুরাপুরি মিথ্যা। আমার বোনের প্রকৃত হত্যাকারীকে পাওয়া গেছে, সে ইতিমধ্যেই কেরাণীগঞ্জ থানায় গ্রেফতার হয়ে আছে। জায়েদ ভাই এটার সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত না।”

ভগ্নিপতিকে সন্দেহ করা প্রসঙ্গে খোকন বলেন, “তার গাড়ির মধ্যে রক্ত, তারা আটটা থেকে দশটা পর্যন্ত ছিল না, এই সময়ের মধ্যেই লাশ ফেলে দিছে, ড্রাইভার সব বলছে। আমার ভগ্নিপতি অ্যাডিক্টেড, আমি আর কিছু বলতে চাই না।”

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালে কাজী হায়াতের ‘বর্তমান’ সিনেমায় প্রথম অভিনয় করেন শিমু। এরপর ২০০৪ সাল পর্যন্ত দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, চাষি নজরুল ইসলাম, শরিফ উদ্দিন খান দিপুসহ আরও বেশ কিছু পরিচালকের প্রায় ২৫ সিনেমায় অভিনয় করেন তিনি। গেল দুই বছর ধরে এফডিসি যাতায়াত ছিল শিমুর। শিল্পী সমিতি কর্তৃক ১৮৪ জন ভোটাধিকার হারানো শিল্পীর মধ্যে ছিলেন তিনি। ভোটাধিকার রক্ষার বিভিন্ন আন্দোলনেও তাকে দেখা যেত। এছাড়া টুকটাক নাটকেও কাজ করতেন। এ ছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে ফ্যামিলি ক্রাইসিস নামে একটি ধারাবাহিক নাটকেও কাজ করেছেন শিমু।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা