শুক্রবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩,   আশ্বিন ১৪ ১৪৩০,  ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫

Gazipur Kotha | গাজীপুর কথা

রাত পোহালেই ভোট চট্টগ্রামে, কেন্দ্রে পৌঁছেছে সরঞ্জাম

প্রকাশিত: ২৩:৩৯, ২৯ জুলাই ২০২৩

রাত পোহালেই ভোট চট্টগ্রামে, কেন্দ্রে পৌঁছেছে সরঞ্জাম

নির্বাচনী সরঞ্জাম

চট্টগ্রাম-১০ আসনের উপনির্বাচন রোববার। এ উপলক্ষে শনিবার ভোট কেন্দ্রগুলোতে পাঠানো হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম। দুপুরের পর থেকে প্রিজাইডিং অফিসারদের হাতে এসব সরঞ্জাম তুলে দেওয়া হয়।

রোববার সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। মোট ১৫৬টি কেন্দ্রের এক হাজার ২৫১টি বুথে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ভোট কেন্দ্রগুলোতে মোট চার হাজার ১০৬ জন ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন। ভোটগ্রহণের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে দুই হাজার ১১০টি ইভিএম। ১৫৬ কেন্দ্রে বসানো হয়েছে এক হাজার ৪০৭টি সিসি ক্যামেরা। এ আসনে মোট ভোটার চার লাখ ৮৮ হাজার ৬৩৩ জন। তাদের মধ্যে দুই লাখ ৪৮ হাজার ৯২৯ জন পুরুষ এবং দুই লাখ ৩৯ হাজার ৬৮০ জন নারী।

চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান বলেন, ১৫৬টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে সাধারণ কেন্দ্রগুলোতে ১৬-১৭ জন পুলিশ ও আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে ১৭- ১৮ জন পুলিশ ও আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। পুলিশ ও এপিবিএনের সমন্বয়ে আট ওয়ার্ডে আটটি মোবাইল ফোর্স থাকবে। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে র‌্যাবের চারটি টিম থাকবে। থাকবে চার প্লাটুন বিজিবি। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আটজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও দুইজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে থাকবেন।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, উপনির্বাচনে ১৬৪ জন প্রিজাইডিং অফিসার, এক হাজার ৩১৪ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং দুই হাজার ৬২৮ জন পোলিং অফিসার ভোট কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করবেন।  

এদিকে, উপনির্বাচনের পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখার লক্ষ্যে শনিবার দিবাগত রাত ১২টা থেকে রোববার (ভোটের দিন) দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত ট্রাক, বাস, মিনিবাস, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার ও ইজিবাইক চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। একইসঙ্গে শুক্রবার রাত ১২টা থেকে সোমবার রাত ১২টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/তাদের নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি/বিদেশি পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে) ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা শিথিলযোগ্য হবে।

নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত দেশি/বিদেশি সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা–কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং কতিপয় জরুরি কাজ যেমন– অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ ইত্যাদি কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য উল্লিখিত যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না।

এছাড়া জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর ও জরুরি পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিষেধাজ্ঞা শিথিলের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।