• শুক্রবার   ২০ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩

গাজীপুর কথা

এসএসসিতে তিন বোনের চমক

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০২১  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় এসএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে চমক সৃষ্টি করেছেন তিন বোন। এ তিন মেধাবী শিক্ষার্থী হলেন- লাবন্য, প্রীতি ও মেধা।

তারা তিনজনই সম্পর্কে চাচাতো বোন। তিনজনই পৌর শহরের দেবগ্রাম পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের বাণিজ্য বিভাগের ছাত্রী। তাদের এ সাফল্যে অভিভাবক, শিক্ষক, সহপাঠী ও এলাকাবাসী উচ্ছ্বসিত। ফলাফল প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই প্রশংসায় ভাসছেন এ তিন বোন।

তাদের এ সাফল্যের ধারা অব্যাহত রেখে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে পরিবার, এলাকাবাসীর মুখ উজ্জ্বল করার পাশাপাশি দেশের কল্যাণে কাজ করবে এমনটাই প্রত্যাশা শিক্ষক সুশীল সমাজের।

জানা গেছে, আখাউড়া পৌর শহরের দেবগ্রাম এলাকার শিক্ষিত ও সুশীল পরিবার হিসেবে পরিচিত খান পরিবার। খান পরিবারের প্রতিটি সদস্যই শিক্ষাদীক্ষায় অগ্রগামী। খান পরিবারের আট ভাইয়ের মধ্যে ব্যাংকার, শিক্ষক, সাংবাদিকসহ রয়েছে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন দফতরের চাকরিজীবী।

আট ভাইয়ের সাতজনের স্ত্রী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। একজন স্বাস্থ্য সেবায় কর্মরত। শিক্ষা সচেতন পরিবার হিসেবে বহুকাল আগে থেকেই এলাকায় তাদের সুনাম রয়েছে। তাদের সন্তানরাও সেই ধারাবাহিকতা ও পারিবারিক ঐতিহ্য বজায় রেখে পড়াশোনায় ভালো ফলাফল করছেন।

খান পরিবারের সাবেক ব্যাংকার কামাল আহম্মেদ খানের মেয়ে লাবন্য, সাংবাদিক বাদল আহাম্মেদ খানের মেয়ে প্রীতি ও প্রভাষক জাবেদ আহম্মদ খানের মেয়ে মেধা এবার এসএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছেন। তিনজনের মা-ই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা।

সাংবাদিক বাদল আহাম্মদ খান বলেন, এ ফলাফলের জন্য প্রথম কৃতিত্ব আমার মেয়ের। সে মনোযোগ দিয়ে পড়ালেখা করেছে। এরপর তার মা নিজে স্কুল শিক্ষক হওয়ায় মেয়ের পড়ালেখার ব্যাপারে সবসময় গাইড করেছে।

পৌর কাউন্সিলর বাবুল মিয়া বলেন, খান পরিবার একটি শিক্ষিত পরিবার। তারা বহুকাল আগে থেকেই শিক্ষা-দীক্ষার প্রতি খুব সচেতন। আমি তাদের পরিবারের সাফল্য কামনা করি।

দেবগ্রাম পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শেখ মাহফুজুর রহমান বলেন, আমার বিদ্যালয় থেকে ১২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে খান বাড়ির তিনজন গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে। আমি তাদের অভিনন্দন জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, শিক্ষকদের আন্তরিকতা, অভিভাবকদের সচেতনতা এবং ছাত্রছাত্রীদের আগ্রহের কারণেই ফলাফল ভালো হয়েছে। বিশেষ করে খান বাড়ির অভিভাবকরাও খুবই সচেতন। তাদের ছেলেমেয়েরাও পড়ালেখা ভালো। সেজন্য তারা ভালো ফলাফল করেছে।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা