• শুক্রবার   ২২ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৭ ১৪২৮

  • || ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ইভ্যালির সিইও-চেয়ারম্যানসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে ফের নতুন মামলা দায়ের

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১  

প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ধানমন্ডি থানায় গ্রাহকের করা আরেক মামলায় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেলসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ২৭ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম মাহমুদা আক্তারের আদালত মামলাটি গ্রহণ করে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। 

বুধবার মামলার বাদী আলমগীর হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, গত ২৩ সেপ্টেম্বর ধানমন্ডি থানার এক মামলার রিমান্ড শেষে রাসেলকে আদালতে নিয়ে আসা হয়। এরপর ধানমন্ডি থানার আরেক মামলায় গ্রেফতার দেখানোসহ পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ধানমন্ডি থানার উপ-পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ। এসময় আসামি পক্ষে তার আইনজীবী জামিন চেয়ে আবেদন করেন। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তার রিমান্ড আবেদন খারিজ করে জেলগেটে এক দিনের জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন। এর আগে ইভ্যালির গ্রাহক আব্দুর রহমান রাকিব বাদী হয়ে ধানমন্ডি থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন।  

এদিকে গত ২১ সেপ্টেম্বর প্রতারণার অভিযোগে গুলশান থানায় এক গ্রাহকের করা মামলার রিমান্ড শেষে রাসেল ও তার স্ত্রীকে আদালতে নিয়ে আসা হয়। এসময় মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গুলশান থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. ওহিদুল ইসলাম। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরীর আদালত তাদের জামিন আবেদন খারিজ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। একইসঙ্গে ধানমন্ডি থানার মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তাদের সাত দিন করে রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ধানমন্ডি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নাজমুল হুদা। এসময় আসামিপক্ষে তাদের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল ও জামিন চেয়ে আবেদন করেন। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত এই আদেশ দেন। 

গত ১৮ সেপ্টেম্বর ধানমন্ডি থানায় অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে কামরুল ইসলাম চকদার বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। এ মামলায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে মোট ২০ জনকে আসামি করা হয়। এ মামলায় রাসেল ও শামীমা বাদে অন্য আসামিরা হলেন- ইভ্যালির ভাইস প্রেসিডেন্ট আকাশ, ম্যানেজার জাহেদুল ইসলাম হেময়, সিনিয়র অ্যাকাউন্টস ম্যানেজার তানভীর আলম, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ কমার্শিয়াল জাওয়াদুল হক চৌধুরী, হেড অব অ্যাকাউন্টস সেলিম রেজা, অ্যাকাউন্টস ম্যানেজার জুবায়ের আল মাহমুদ, অ্যাকাউন্টস শাখার কর্মকর্তা সোহেল, আকিবুর রহমান তূর্য, সিইও রাসেলের পিএস মো. রেজওয়ান, বাইক ডিপার্টমেন্টের সাকিব রহমান। 

গত ১৫ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ১২টা ২০ মিনিটের দিকে আরিফ বাকের নামের এক ব্যক্তি গুলশান থানায় তাদের বিরুদ্ধে মামলার করেন। গত ১৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের স্যার সৈয়দ রোডের বাসা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তাদেরকে র‌্যাব সদর দফতরে নেয়া হয়। পরে গুলশান থানা পুলিশের কাছে তাদের হস্তান্তর করে র‍্যাব। গত ১৭ সেপ্টেম্বর গুলশান থানায় দায়ের করা মামলায় রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমার তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা