ব্রেকিং:
"গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি আ ক ম মোজাম্মেল হক, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ।" "বিশিষ্ট সাংবাদিক, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো’ গানের রচয়িতা আবদুল গাফফার চৌধুরী আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকারের শোক।"
  • বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

গাজীপুর কথা

ভালুকায় রয়েছে শ’খানেক অবৈধ করাত কল

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০২২  

সংরক্ষিত বনাঞ্চলের ১০ কিলোমিটারের মধ্যে করাতকল বসানো বন আইনে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকলেও ময়মনসিংহের ভালুকায় রয়েছে শ’খানেক অবৈধ করাতকল। এতে উজাড় করা হচ্ছে বন। মালিকদের দাবি, এসব অবৈধ করাতকল চালাতে বন কর্মকর্তাদের মাসিক মাসোহারা দেওয়া হয়। এ অবস্থায় বন কমিটির সদস্য বলেন, বন সংরক্ষণ করতে হলে করাতকল বন্ধে বিশেষ টাস্কফোর্স গঠন করা জরুরি।

গত দু’দশকে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার বনাঞ্চল দখল করে গড়ে উঠেছে শতাধিক শিল্পকারখানা। চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বনের গাছ কেটে কাঠের জোগান দিতে একের পর এক চালু করা হয় অবৈধ করাতকল।
 
বন সংরক্ষণে রেঞ্জ ও বিট অফিসে বন কর্মকর্তা নিয়োগ করা হলেও কার্যত বন রক্ষায় তাদের দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নেই। বরং বন কর্মকর্তাদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন এলাকাবাসী।

এদিকে বন রক্ষায় করাত কল উচ্ছেদে অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন ভালুকা বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. রইচ উদ্দিন আহাম্মদ।
 
তবে ভালুকা উপজেলার পরিবেশ ও বন কমিটির সদস্য কামরুল হাসান পাঠান অভিযোগ করে বলেন, অসাধু বন কর্মকর্তাদের কারণেই উজাড় হচ্ছে বন।
 
ভালুকা উপজেলার সংরক্ষিত বনাঞ্চলকে ঘিরে গড়ে ওঠা অবৈধ করাতকলে প্রতিদিন গড়ে কয়েকশ’ গাছ চিড়ে কাঠ বিক্রি করা হচ্ছে। করাত কল বন্ধে বিভিন্ন সময় অভিযান পরিচালনা করা হলেও তা বন্ধ করতে পারেনি।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা