• শুক্রবার   ২২ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৭ ১৪২৮

  • || ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিষধর `রাসেল ভাইপার` বালতিতে করে বাড়ি নিয়ে আসলেন জেলে!

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১  

পদ্মার শাখা গড়াই নদীতে মাছ ধরতে যান শহরের মঙ্গলবাড়িয়া এলাকার মৃদুল শেখ। মাছ ধরার এক পর্যায়ে তার জালে ধরা পরে একটি সাপ। তার কাছে প্রায় পাঁচ ফিট লম্বা এই সাপটিকে অন্যান্য সাপের থেকে ব্যতিক্রম মনে হওয়ায় তিনি সাপটিকে বালতিতে ভরে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন। সাপটির পেটে ডিম ভর্তি থাকায় তেমন একটা নড়া-চড়া করছিল না। ব্যতিক্রমী এই সাপ উদ্ধারের খবর লোকমুখে ছড়িয়ে পড়লে এক নজর সাপটিকে দেখার জন্য তার বাড়িতে এলাকাবাসীরা ভিড় করতে থাকে। পরে দেখা যায় এই বিষধর রাসেল ভাইপার সাপ।
কুষ্টিয়ায় গড়াই নদীতে মাছ ধরতে ধরা পরে বিষধর এই রাসেল ভাইপার সাপটি। এর চারদিন পর স্থানীয় প্রকৃতিপ্রেমী শাহাবুদ্দিন মিলন বন বিভাগের সহায়তায় গর্ভবতী ওই সাপটিকে শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাতে কুষ্টিয়ার দুর্গম চরে অবমুক্ত করেন।
কুষ্টিয়া বন বিভাগের কর্মকর্তা আব্দুল হামিদ জানান, বিষয়টি জানতে পেরে শনিবার রাতে লোকজন নিয়ে জেলে মৃদুল শেখের বাড়িতে যায়। পরে সাপটিকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়ার দুর্গম চরে অবমুক্ত করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে সম্প্রতি বন্যার কারণে ভারত থেকে সাপটি ভেসে এসেছে।
উল্লেখ্য, সাপ সাধারণত ডিম পাড়ে এবং ডিম ফুটে বাচ্চা হয়। তবে রাসেল ভাইপার ডিম পাড়ার পরিবর্তে সরাসরি বাচ্চা দেয়। এরা বছরের যেকোনো সময় প্রজনন করে। একটি স্ত্রী সাপ গর্ভধারণ শেষে ২০-৪০টি বাচ্চা দেয়। তবে কোনো কোনো রাসেল ভাইপার ৭৫টি পর্যন্ত বাচ্চা দেওয়ার রেকর্ড রয়েছে।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা