ব্রেকিং:
করোনা আপডেট বাংলাদেশ ২৫/০৭/২০২১: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২২৮ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৯২৭৪ জন, নতুন ১১২৯১ জন সহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১১৬৪৬৩৫ জন। নতুন ১০৫৪৮ জন সহ মোট সুস্থ ৯৯৮৯২৩ জন। একদিনে ৩৭৫৮৭ টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ৭৪৫৫২৮১।
  • সোমবার   ২৬ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১১ ১৪২৮

  • || ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

সর্বশেষ:
ব্রুনাইয়ের সুলতানকে ‘হাড়িভাঙ্গা’ আম পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তিন বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ ৩১ জুলাই চালু হচ্ছে বিএসএমএমইউ ফিল্ড হাসপাতাল প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভেন্টিলেটর সংগ্রহ ২৮ জুলাই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকে ভর্তি শুরু অনলাইনে ভিসা সেবা দিবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২৬ জুলাই, কবি ও সুরকার রজনীকান্ত সেনের জন্মদিন ‘তিন’ ট্রফি নিয়েই দেশে ফিরছে টাইগাররা মেঘনায় ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার অব্যাহত থাকবে

লকডাউনে ৭ জেলার নাগরিকরা যা করতে পারবেন, যা পারবেন না

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ২৩ জুন ২০২১  

ঢাকার আশেপাশের সাতটি জেলায় বিশেষ লকডাউন শুরু হয়েছে মঙ্গলবার থেকে, ফলে এ সাতটি জেলার ওপর দিয়ে ঢাকায় যানবাহন নিয়ে আসার সুযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। জেলা কর্তৃপক্ষ বলছে জেলার প্রবেশ ও বের হওয়ার পথে চেকপোস্ট দেয়া হয়েছে এবং মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব সংক্রান্ত সরকারি বিধিনিষেধ ভঙ্গ করলে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছেন তারা।

সরকারঘোষিত বিধিনিষেধের আওতায় থাকা সাত জেলা হলো মানিকগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, গাজীপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী ও গোপালগঞ্জ। জেলা প্রশাসন বলছেন এর ফলে জরুরি সেবা ছাড়া অন্য কোন কারণে কেউ বের হতে পারবে না।

মানিকগঞ্জের ওপর দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য যানবাহন একদিকে ঢাকায় আসে অন্যদিকে ঢাকা থেকে দেশের বিভিন্ন এলাকায় যায় এবং জেলা থেকেও বিপুল সংখ্যক মানুষ প্রতিদিন ঢাকায় যাতায়াত করে।

সেখানকার জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ বলছেন, সব তারা বন্ধ করে দিয়েছেন সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী এবং শহরে তিনটি মোবাইল কোর্ট কাজ করছে।

মুন্সীগঞ্জের সাংবাদিক মীর নাসির উদ্দন উজ্জ্বল বলছেন, জেলা থেকে প্রবেশ ও বের হওয়ার পথে চেকপোস্ট ছাড়াও জেলা সদর ও প্রতিটি উপজেলায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছে প্রশাসন।

অন্য জেলাগুলোতেও জেলা সদর ও উপজেলা পর্যায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জনসাধারণকে ঘরের বাইরে বের না হতে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

সাত জেলায় নিষেধাজ্ঞার বাইরে যা কিছু

১.জেলা প্রশাসনগুলোর কর্মকর্তারা বলছেন কৃষি উপকরণ, খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ পরিবহন, স্বাস্থ্য সেবাসহ জরুরি সেবার সাথে জড়িত অফিস খোলা থাকবে ও তাদের কর্মচারী যানবাহন চলাচল করবে।
২.পন্যবাহী পরিবহন নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে।
৩.এর বাইরে মানুষ প্রয়োজনে ফার্মেসী ও কাঁচাবাজারে যেতে পারবে তবে মাস্ক পরতে হবে ও সামাজিক দূরত্ব মানতে হবে।
৪.যানবাহনে চলাচল করবে না।
৫.কেউ জেলায় প্রবেশ বা জেলা থেকে বের হতে পারবে না।
৬.যত্রতত্র ঘোরাফেরা করা যাবে না।
৭.বিশেষ প্রয়োজন না হলে ঘর থেকেই বের হতে অনুৎসাহিত করা হবে।
৮.জরুরি সেবার সাথে সম্পর্কিত নয় এমন দোকানপাট ও শপিং মল বন্ধ থাকবে।

প্রসঙ্গত, সরকারি প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী এসব জেলায় জরুরি সেবা ছাড়া সব ধরণের চলাচল ও কার্যক্রম বন্ধ থাকার পাশাপাশি এসব জেলার ওপর দিয়ে কোন দূরপাল্লার বাসও চলাচল করবে না। ইতোমধ্যেই বাস মালিক সমিতি দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছেন এবং ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া ট্রেন এসব জেলার কোন স্টেশনে থামবে না।

অন্যদিকে বিআইডব্লিউটিএ সব ধরণের লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষনা করেছে। সূত্র: বিবিসি বাংলা

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা