• শুক্রবার   ২০ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩

গাজীপুর কথা

জায়েদ খান নয়, স্বামীই নায়িকা শিমুর হত্যাকারী: দাবি ভাইয়ের (ভিডিও)

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০২২  

বিনোদন ডেস্ক: অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমু হত্যার ঘটনায় তার স্বামী শাখাওয়াত আলী নোবেলসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে বলে জানিয়েছেন নায়ক জায়েদ খান। একটি রক্তমাখা গাড়িও উদ্ধার করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। এ ঘটনায় শিমুর ভাই শহিদুল ইসলাম খোকন বাদী হয়ে দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। নিহতের ভাইকে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে নায়ক জায়েদ খান বলেন, চলচ্চিত্র শিল্প সমিতির নির্বাচন নিয়ে চলছে নোংরা রাজনীতি। শিমু হত্যা ইস্যুতে তাকে ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে বলেও দাবি করেন তিনি।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) গভীর রাতে চিত্রনায়ক জায়েদ খানের বাসায় সংবাদ সম্মেলনে নায়িকা শিমুর ভাই শহিদুল ইসলাম খোকন এ তথ্য জানান। হত্যাকাণ্ডের সন্দেহের তীর অভিনেতা জায়েদ খানের ওপর থাকায় রাতে নিজের বাসার সামনে সংবাদ সম্মেলন করেন অভিনেতা জায়েদ।

শিমুর ভাই বলেন, প্রথম আসামি আমার শ্যালিকা নোবেল। তিনি এবং ফরহাদ নামে এক ব্যক্তি এটি করেছেন। তাদেরকে র‌্যাবের হাতে আটক করায় কেরানীগঞ্জ থানার ওসি আমাদের সহায়তা করেন। এর আগে লাশ শনাক্ত করার জন্য কেরানীগঞ্জ থেকে আমার কাছে একটি ফোন আসে। সেখানে গিয়ে আমি নিজেই আমার বোনের লাশ শনাক্ত করি।

জায়েদ খানের দিকে সন্দেহের তীর- এ প্রসঙ্গে কী বলবেন? জানতে চাইলে খোকন বলেন, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আল্লাহ তায়ালা উপস্থিত ও বিরাজমান এ কথা বিশ্বাস করা মিথ্যা। আমার বোনের আসল খুনি খুঁজে পাওয়া গেছে, তাকে ইতিমধ্যে কেরানীগঞ্জ থানায় গ্রেফতার করা হয়েছে। জায়েদ ভাই কোনোভাবেই জড়িত নন।

শ্যালককে কেন সন্দেহ করছেন? জানতে চাইলে খোকন বলেন, তার গাড়িতে রক্ত ​​ছিল, তারা আট থেকে দশজনের মধ্যে ছিল না, এ সময় লাশ ফেলে দেওয়া হয়েছে, ড্রাইভার সব বলছে। আমার জামাই নেশাগ্রস্ত, এর বেশি কিছু বলতে চাই না।

এ সময় তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ইমেজ নায়ক জায়েদ খান বলেন, আমি কখনো ভাবিনি তোমাকে আমার সামনে এমন নোংরা কথা বলতে হবে। শিল্পী সমিতি নির্বাচন নিয়ে যে নোংরামি শুরু হয়েছে তার অবসান হওয়া দরকার। শিমু ও তার ভাই দুজনেই শিল্পী সমিতির সদস্য। আমি এই হত্যাকান্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানাই। র‌্যাবকে ধন্যবাদ জানিয়ে তারা ইতিমধ্যে আসামিদের গ্রেফতার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নিয়েছে।

 

এর আগে সোমবার সকালে কেরানীগঞ্জ আলীপুর ব্রিজের পাশ থেকে বস্তা বন্দী অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এদিকে অভিনেত্রী শিমুর বোন ফাতেমা জানান, রোববার সকাল ১০টায় বাসা থেকে বের হয় শিমু। সন্ধ্যা ৭টায় শিমুর এক বন্ধু শিমুকে ফোনে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানায়। পরে রাত ১১টায় কলাবাগান থানায় যায় জিডি করা হয়। সন্ধ্যায় মিটফোর্ড হাসপাতালে লাশ শনাক্ত করেন শিমুর ভাই শহিদুল ইসলাম খোকন। 

 

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা