ব্রেকিং:
করোনা আপডেট বাংলাদেশ ২৫/০৭/২০২১: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২২৮ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৯২৭৪ জন, নতুন ১১২৯১ জন সহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১১৬৪৬৩৫ জন। নতুন ১০৫৪৮ জন সহ মোট সুস্থ ৯৯৮৯২৩ জন। একদিনে ৩৭৫৮৭ টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ৭৪৫৫২৮১।
  • সোমবার   ২৬ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১১ ১৪২৮

  • || ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

সর্বশেষ:
ব্রুনাইয়ের সুলতানকে ‘হাড়িভাঙ্গা’ আম পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তিন বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ ৩১ জুলাই চালু হচ্ছে বিএসএমএমইউ ফিল্ড হাসপাতাল প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভেন্টিলেটর সংগ্রহ ২৮ জুলাই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকে ভর্তি শুরু অনলাইনে ভিসা সেবা দিবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২৬ জুলাই, কবি ও সুরকার রজনীকান্ত সেনের জন্মদিন ‘তিন’ ট্রফি নিয়েই দেশে ফিরছে টাইগাররা মেঘনায় ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার অব্যাহত থাকবে

গাজীপুর হেডকোয়ার্টারের বাইপাস সড়ক আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ২১ জুলাই ২০২১  

গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন, ঈদের আগেই টঙ্গী বনমালা গাজীপুর হেডকোয়ার্টার বাইপাস সড়ক যানবাহন চলাচলে উম্মুক্ত করে দিয়ে কথা রেখেছি। গাজীপুর সিটিতে এমন আরো নির্মাণাধীন বহু সড়ক আগামী এক বছরের মধ্যে উম্মুক্ত করে জনগনের চাওয়া পাওয়া পূরন করা হবে।
সোমবার গভীর রাতে বহুল আলোচিত টঙ্গী বনমালা গাজীপুর হেডকোয়ার্টারের বাইপাস সড়কটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের সময় তিনি এসব কথা বলেন। টঙ্গী গাজীপুর মহাসড়কে যানবাহনের চাপ কমাতে গত ৩ মাস আগে নতুন করে বনমালা রাস্তাটির নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। রাতদিন ২৪ ঘন্টা কাজ করে সড়কটি যানচলাচলের জন্য উপযুক্ত করে তা খুলে দেয়া হয়েছে।

মেয়র জাহাঙ্গীর আলম আরো বলেন, টঙ্গী বনমালা গাজীপুর হেডকোয়ার্টার সড়কটি যানবাহন চলাচলের জন্য চালু করে দেয়ায় টঙ্গী গাজীপুর মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বহুলাংশে কমে আসবে।

এ সড়কে গাজীপুরের ১০ লাখ মানুষ তাদের অভ্যান্তরীন যাতায়াতে সুবিধা ভোগ করবেন। ৫০ ফিট চওড়া করে রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়েছে। সড়কের পূর্ব পাশে রয়েছে আলাদা ফুটপাত।

রাস্তার সৌন্দর্য বর্ধনে থাকবে নানা আয়োজন। পুরো রাস্তাটিকে সড়ক বাতিতে সজ্জিত করা হয়েছে। টঙ্গী বনমালা গাজীপুর হেডকোয়ার্টারের ১০ কিলোমিটারের বনমালা হায়দ্রাবাদ নয়া রাস্তাটি দেখতে উদ্বোধনের পর থেকে শত শত মানুষ ভীড় জমাচ্ছেন বনমালা হায়দ্রাবাদ সড়কে।

ঢাকা টঙ্গী গাজীপুর ময়মনসিংহ টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানজট কমাতে সড়ক পথের এই রাস্তা চালুর বাস্তবায়নে নির্মাণ কাজে শ্রমিকদের উৎসাহ দিতে গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম নিজেই গভীর রাতে রাস্তায় ইট বিছানোর সলিংয়ে নেমে পড়েছিলেন। ২৪ ঘন্টা কাজের সময় মেয়র কাউন্সিলরদের নির্ঘুম রাতও কাটে সড়কটি নির্মাণকালে।

টঙ্গী জয়দেবপুর রেললাইন ঘেঁষা ৫০ ফিটের চওড়া টঙ্গী বনমালা গাজীপুরের এই সড়কটির নির্মাণ কাজ তিন মাস আগে শুরু করা হয়েছিল। মেয়র জাহাঙ্গীর আলম আরো বলেন, আলেচিত রাস্তাটি টঙ্গী চেরাগআলী কলেজগেট বনমালা হায়দ্রাবাদ রেলব্রীজ হয়ে সোজা গাজীপুর হেডকোয়ার্টারে গিয়ে মিলিত হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এই রাস্তাটি রাজেন্দ্রপুরে গিয়ে ঢাকা ময়মনসিংহ মহসড়কে মিলিত হবে।

অপরদিকে রাস্তাটি গাজীপুর টঙ্গী সিলেট এবং গাজীপুর বনমালা আমতলী হয়ে ঢাকা টঙ্গী কালীগঞ্জ সিলেট সড়কে মিলিত হবে। এছাড়া ঢাকা চট্টগ্রাম এবং ঢাকা ময়মনসিংহ রেললাইনের দুপাশ দিয়ে গাজীপুর সিটি এলাকায় ৬ লেন করে ১২ লেনের হাইওয়ে রাস্তা নির্মাণের একটি প্রকল্পও হাতে নেয়া হয়েছে।

টঙ্গী নিমতলী গাজীপুর হেডকোয়ার্টার হয়ে অপর একটি বিকল্প রাস্তার কাজও এখন চলমান রয়েছ। এছাড়াও গাজীপুর সিটিতে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৭ শ কিলোমিটারের ২০/৩০/৪০/৫০/৬০ ফুট চওড়া করে রাস্তার নির্মাণ কাজও এগিয়ে চলছে। আলোচিত টঙ্গী বনমালা গাজীপুর রাস্তাটি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের বাবা আহসান উল্লাহ মাস্টারের গ্রামের বাড়ির রাস্তা হয়ে গাজীপুর হেডকোয়ার্টারে মিলিত হয়েছে।

সাবেক মন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপির সংসদীয় এলাকার রাস্তাটি হওয়ায় ব্যাপক আলোচনায় এসেছে বাইপাসের এই রাস্তাটিকে ঘিরে। নির্মাণ কাজের অগ্রগতি দেখতে মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি, মেহের আফরোজ চুমকি এমপি ও গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম একযোগে পরিদর্শনে আসেন বনমালা হায়দ্রাবাদ ব্রীজ এলাকায়।

গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে সাংবাদিক নূরুল ইসলামও রাতবিরাতে কয়েক দফা সড়কটি পরিদর্শনে আসেন। একদেড় বছরে যে রাস্তাটি নির্মাণ সম্ভব ছিলনা তা ৩ মাসের মাথায় শেষ করে যানচলাচলে উম্মুক্ত করে দেয়ায় হাজরো মানুষ আনন্দে দুলছে। উল্লেখ করা যেতে পারে, সড়কটি সরু এবং রেললাইন লগোয়া ছিল।

সম্প্রতি টঙ্গী-জয়দেবপুর রেললাইনের দ্বিতীয় লেন নির্মাণের সময় রেল কর্তৃপক্ষ আগের রাস্তাটি তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে যায়। ফলে হাজার হাজার মানুষ গাড়ি-ঘোড়া নিয়ে টঙ্গী থেকে হায়দ্রাবাদ-গাজীপুর হেডকোয়ার্টারে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগে পড়েন। হায়দ্রাবাদ ব্রীজ থেকে বনমালা রেললাইন পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটারের রাস্তাটির পুরো অস্তিত্বই বিলীন হয়ে যায় নয়া রেল লাইন ও তাদের বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণে সব জায়গা দখলে নিয়ে নেয়ায়। বিপাকে পড়েন এ সড়ক দিয়ে চলাচলকারী ৮ থানার প্রায় ২০ লাখ মানুষ।

টঙ্গী-বনমালা-জয়দেবপুর হেডকোয়ার্টারের সঙ্গে মিলিত হওয়া সড়কটির এমন বেহাল দশায় এলাকাবাসী গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের দৃষ্টি আকর্ষন করালে মেয়র জাহাঙ্গীর আলম ১০ কিলোমিটারের রাস্তাটি ৫০ ফিট চওড়া করে নির্মাণ কাজ শুরু করেন। ৩ মাসের মধ্যে রাস্তাটি শতভাগ নির্মাণ করে যান চলাচলের জন্য খুলে দিয়েছেন মেয়র জাহাঙ্গীর আলম।

এই বিকল্প সড়কে ঢাকা গাজীপুরে যাতায়াতকারী যানবাহনগুলো যানজট এড়িয়ে দেড়-দুই ঘন্টার পথ মাত্র ১৫ মিনিটে পাড়ি দিতে পারবেন গাজীপুর হেডকোয়ার্টার এবং টঙ্গীতে। জাহাঙ্গীর আলম আরো বলেন, ঢাকা টঙ্গী গাজীপুর মহাসড়কের বিকল্প বাইপাসের এই সড়কটি গাজীপুর হেডকোয়ার্টার হয়ে রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হবে।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ তাদের পুরো জায়গা তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়ায় রেললাইন সংলগ্ন মালিকানা জমি ও ঘরবাড়ির উপর দিয়ে রাস্তাটি নেয়ার প্রয়োজন হয়ে পড়ে। বনমালা রেলগেটের আশপাশের বেশ কিছু জমি ও ঘর-বাড়ি মালিকদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার আশ্বাস এবং তাৎক্ষণিক পরিশোধ করায় জমি ও বাড়ি মালিকরা রাস্তার জন্য জমি ও ঘরবাড়ির দখল ছেড়ে দেন। রাস্তার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাস্তায় ক্ষতিগ্রস্হ জমি এবং বাড়ি মালিকদের ফুল দিয়ে মেয়র জাহাঙ্গীর আলম এবং এলাকাবাসী বরণ করে নেন।

নতুন রাস্তাটি নির্মাণের ফলে যানবাহন চালক এবং যাত্রীরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের টঙ্গী চেরাগআলী কলেজ গেট থেকে চান্দনা চৌরাস্তা পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার যানজট এড়িয়ে খুব সহজেই গাজীপুর হেডকোয়ার্টার এবং টঙ্গীতে আসা যাওয়া করতে পারবেন।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর কথা