ব্রেকিং:
করোনা আপডেট বাংলাদেশ ০৭/০৩/২০২১: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১১ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮৪৬২, নতুন ৬০৬ জন সহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫ লাখ ৫০ হাজার ৩৩০ জন। নতুন ১ হাজার ৩৭ জন সহ মোট সুস্থ ৫ লাখ ৩ হাজার ০৩ জন। একদিনে ১৪ হাজার ৯২টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ৪১ লাখ ৪৬ হাজার ২০৫টি।
  • রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২৩ ১৪২৭

  • || ২৩ রজব ১৪৪২

সর্বশেষ:
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ। বাঙালি জাতির দীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অনন্য দিন। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী কমনওয়েলথের অনুপ্রেরণাদায়ী ৩ নারী নেতার একজন শেখ হাসিনা ইউনেস্কোতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বাংলাদেশের অসাধারণ সাফল্যের প্রশংসা করলেন ইতালির রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশকে এক কোটি ৯ লাখ ডোজ টিকা দেবে জাতিসংঘ চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছাল রেলের ৮ ব্রডগেজ ইঞ্জিন মেট্রোরেলের জন্য রেলকোচের প্রথম চালান পাঠিয়েছে জাপান ঢাকা-জলপাইগুড়ি ট্রেন চালু হচ্ছে ২৬ মার্চ করোনা টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন ৪৫ লক্ষাধিক মানুষ

হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ায় যে ৭ খাবার

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ১৭ জানুয়ারি ২০২১  

অনিয়মিত জীবনযাপনের কারণেই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মানুষের হার্ট অ্যাটাক হয়। যুক্তরাষ্ট্রে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মৃত্যুহার সবচেয়ে বেশি হার্ট অ্যাটাকে। হার্টের কোষগুলো যখন কাজ করে না; তখনই হার্ট অ্যাটাক হয়।

ফ্যাট ও কোলেস্টেরল বেড়ে গিয়ে ধমনীতে বাধা সৃষ্টি করে। এভাবেই রক্তের স্বাভাবিক প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হয়। ধূমপান, অস্বাস্থ্যকর খাবার, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, স্থূলতার কারণে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

একই সঙ্গে অতিরিক্ত লবণ, স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং কোলেস্টেরলযুক্ত খাবার খেলে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো খাওয়া বন্ধ না করলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেড়ে যায়-

>> ভরপেট খাওয়ার পর অনেকেই কোমলপানীয় নেন। প্রতি ১২ আউন্স সোডাজাতীয় পানীয়তে ১০ চা চামচ চিনি পাওয়া যায়! নিয়মিত কোমলপানীয় নিলে ওজন তো বাড়বেই, সঙ্গে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ে। অন্যদিকে কৃত্রিম চিনি ক্যান্সার ডেকে আনে।

>> সাদা চাল ও ময়দায় পুষ্টিগুণ কম থাকে। পরিশোধিত এ খাবারগুলো খেলে খিদে আরও বেড়ে যায়। এ ছাড়া স্থূলতা এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ে। প্রসেসিং খাবারে অতিরিক্ত লবণ এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে। অন্যদিকে অপরিশোধিত খাবার খেলে রক্তনালীর কার্যকারিতা বেড়ে যায়।

>> প্রক্রিয়াজাত মাংসেও স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং লবণ থাকে। সসেজ, হট ডগ ইত্যাদি হার্টের জন্য ভালো নয়। একদিন যদি আপনি প্রক্রিয়াজাত মাংস খেয়ে থাকেন, তবে আপনার হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি ৪২ শতাংশ বেড়ে যাবে।

>> খাবারে লবণ কম হলে তা মোটেও সুস্বাদু হয় না। ক্যানের খাবারগুলোয় সবচেয়ে বেশি লবণ থাকে। অতিরিক্ত লবণ খাওয়া শরীরের জন্য ক্ষতিকর। অত্যধিক লবণ খেলে রক্তনালীগুলো ক্রমশ সংকুচিত হয়ে যায়।

>> বর্তমানে আমাদের ফাস্টফুড ছাড়া একদিনও চলে না। বিকেল হলেই সবার মধ্যে ফাস্টফুড খাওয়ার নেশা বেড়ে যায়। চিনি, স্যাচুরেটেড ফ্যাট, উচ্চ কোলেস্টেরল, প্রক্রিয়াজাত মাংস এবং প্রচুর পরিমাণে ক্যালোরি থাকে ফাস্টফুডে। হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ ফাস্টফুড, এটি সবাই জানলেও মানেন না।

>> পিৎজা খেতে ছোট-বড় সবাই পছন্দ করেন। তবে হার্টের জন্য মোটেও ভালো নয় খাবারটি। হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে পিৎজায় থাকা ফ্যাট, লবণ ও প্রক্রিয়াজাত মাংস। প্রচুর পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে এতে।

>> ফাস্টফুডের মতো আইসক্রিমের নেশাও রয়েছে অনেকের। এ খাবারও ছোট-বড় সবার পছন্দের। বিশেষ করে গরমে আইসক্রিমের চাহিদা থাকে তুঙ্গে। পরিশোধিত চিনি থাকে আইক্রিমে, যা হার্ট অ্যাটাকের জন্য দায়ী। এ ছাড়া আইসক্রিমে রয়েছে ফ্যাটযুক্ত দুধ, কোলেস্টেরল, যা খেলে ক্যালোরি গ্রহণের মাত্রা বাড়ে।

নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাবার ও শরীরচর্চা করলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমিয়ে আনা যায়। হৃদযন্ত্র ভালো রাখতে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া জরুরি।

গাজীপুর কথা