ব্রেকিং:
দেশে ২৪তম দিনে ১ লাখ ৯৮৩ জন ভ্যাকসিন নিয়েছেন। এরমধ্যে পুরুষ ৬১ হাজার ৩৫৪ জন ও নারী ৩৯ হাজার ৬২৯ জন। এ পর্যন্ত ৩৬ লাখ ৮২ হাজার ১৫২ জন ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ২৩ লাখ ৫৫ হাজার ৪২৩ জন ও নারী ১৩ লাখ ২৬ হাজার ৭২৯ জন। ভ্যাকসিন নিতে নিবন্ধন করেছেন ৪৯ লাখ দুই হাজার ৯৪৮ জন। করোনা আপডেট বাংলাদেশ ০৬/০৩/২০২১: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১০ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮৪৫১, নতুন ৫৪০ জন সহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫ লাখ ৪৯ হাজার ৭২৪ জন। নতুন ৮২২ জন সহ মোট সুস্থ ৫ লাখ ১ হাজার ৯৬৬ জন। একদিনে ১৩ হাজার ৮২টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ৪১ লাখ ৩১ হাজার ১১৩টি।
  • রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২৩ ১৪২৭

  • || ২৩ রজব ১৪৪২

সর্বশেষ:
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ। বাঙালি জাতির দীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অনন্য দিন। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী কমনওয়েলথের অনুপ্রেরণাদায়ী ৩ নারী নেতার একজন শেখ হাসিনা ইউনেস্কোতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বাংলাদেশের অসাধারণ সাফল্যের প্রশংসা করলেন ইতালির রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশকে এক কোটি ৯ লাখ ডোজ টিকা দেবে জাতিসংঘ চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছাল রেলের ৮ ব্রডগেজ ইঞ্জিন মেট্রোরেলের জন্য রেলকোচের প্রথম চালান পাঠিয়েছে জাপান ঢাকা-জলপাইগুড়ি ট্রেন চালু হচ্ছে ২৬ মার্চ করোনা টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন ৪৫ লক্ষাধিক মানুষ

যেসব কারণে পদ্মা সেতু বিশ্বে অদ্বিতীয়

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০২০  

পদ্মায় শুধু একটা সেতু নয়, দেশের লাখো মানুষের আবেগ অনুভূতি জড়িয়ে আছে এই সেতুর সঙ্গে। তবে এটি শুধু বিশ্বব্যাংকের সাথে চ্যালেঞ্জ নয়, কারিগরি দিক থেকেও বিশ্বের মধ্যে নানা কারণে অনন্য বাংলাদেশের এ সেতুটি।

খরস্রোতা নদী পদ্মা, বলা হয়ে থাকে আমাজনের পর সবচেয়ে বেশি স্রোতস্বিনী নদী এটি। এখানে বর্ষায় এমন গতিতে স্রোত থাকে, যে কোনো প্রকৌশলগত কাজ করা জটিল হয়ে পড়ে। সে স্রোত সামলেই হয়েছে পদ্মা সেতুর কাজ। 

নদীর প্রতিটি পিলারে ৬টি করে যে খুঁটি বসানো হয়েছে, তার প্রতিটির দৈর্ঘ্য ১২০ মিটার। শক্তিশালী হ্যামার দিয়ে নদীর তলদেশে মাটির গভীরে প্রবেশ করানো হয় এ লম্বা পাইলগুলো। এত লম্বা দৈর্ঘ্যের পাইল ব্যবহার করা হয়নি পৃথিবীর আর কোনো সেতুতে। সেখানেও জটিলতা দেখা দেয়। এত লম্বা হওয়া সত্ত্বেও বেশ কয়েকটি পিলারের ক্ষেত্রে নদীর তলদেশে শক্ত মাটি খুঁজে না পাওয়ায় এ দৈর্ঘ্য বাড়ানোর প্রয়োজন পড়ে। তবে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানির সঙ্গে সর্বোচ্চ ১২৪ মিটার পর্যন্ত পাইলিংয়ের চুক্তি ছিল সেতু কর্তৃপক্ষের।

এ ক্ষেত্রে নতুন করে চুক্তির প্রয়োজন দেখা দেয়। এ অবস্থায় বিকল্প একটি উপায় খুঁজে বের করে পদ্মা সেতুর পরামর্শকরা। 

তারা পাইলের দৈর্ঘ্য ঠিক রেখে প্রতিটি পিলারে ৬টির পরিবর্তে ৭টি করে খুঁটি বসানোর সিদ্ধান্ত নেন। তবে, এখানে বাড়তি যোগ করা হয় গ্রাউটিং প্রযুক্তি। প্রতিটি পাইলের বাইরের অংশে খাজ কাটা কয়েকটি অংশ তৈরি করা হয়। ওই অংশগুলো দিয়ে উচ্চ শক্তিতে সিমেন্ট প্রবেশ করানো হয়। এর আগে দেশের কোথাও গ্রাউটিং প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয় নি। এভাবে সমাধান করা হয় পদ্মা সেতুর পিলারের নকশা জটিলতার। 

সেতুতে পিলারের ওপর স্প্যান বসানোর সময় প্রতিটি স্প্যানের নিচে যে বিয়ারিং ব্যবহার করা হয়, সেটির ক্ষমতা ১০ হাজার মেট্রিক টন। এর আগে বিশ্বের কোথাও এত শক্তিশালী বিয়ারিং ব্যবহার করা হয়নি। সর্বোচ্চ সাড়ে ৭ হাজার মেট্রিক টন পর্যন্ত বিয়ারিং ব্যবহার করা হয়েছে কয়েকটি দেশের সেতুতে। এ বিয়ারিংয়ের কাজ স্প্যানের ওপর যে চাপ তৈরি হবে সেটিকে সামাল দেওয়া। এছাড়া রিকটার স্কেলে ৯ মাত্রার ভূমিকম্প হলেও সেটি সামলে নিতে পারবে এ বিয়ারিংগুলো। 

পদ্মা সেতুর কাজে আরেকটি উল্লেখযোগ্য প্রকল্প নদী শাসন। নদী ভাঙন রোধ এবং নদীর গতি প্রবাহ ঠিক রাখতে সেতুতে আলাদা করে নেওয়া এ প্রকল্পের মেয়াদ ধরা হয়েছে ২০২১ সালের জুন মাস পর্যন্ত। এ প্রকল্পের বাজেট ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৮শ কোটি টাকা, যা বিশ্বের আর কোনো নদী শাসন করতে ব্যয় করা হয়নি। এ প্রকল্পের মাধ্যমে নদীর দুই পাশে ১১৪ কিলোমিটার এলাকা শাসন করা হবে। প্রকল্পের ৬ হাজার কোটি টাকার বেশি এর মধ্যে ব্যয় করা হয়েছে।

গাজীপুর কথা