ব্রেকিং:
করোনা আপডেট বাংলাদেশ ২০/০৯/২০২০: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৬ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯৩৯, নতুন ১৫৪৪ জনসহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৩৪৮৯১৬ জন। নতুন ২১৭৯ জনসহ মোট সুস্থ ২৫৬৫৬৫ জন। একদিনে ১১৫৯১টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ১৮২১২৭০টি।
  • সোমবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ৬ ১৪২৭

  • || ০৩ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সকলেই আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছে : প্রধানমন্ত্রী অনলাইনে কেজিপ্রতি পেঁয়াজের দাম ৩৬ টাকা ৪০ উপজেলায় অ্যাপে আমন ধান কিনবে সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা এরদোয়ানের মহানগরের হায়দরাবাদ এলাকায় রমনী কুমার বিদ্যালয়ের ৬তলা ভিত স্থাপন গাজীপুরে ২৪ ঘন্টায় নতুন ৩ জন করোনায় আক্রান্ত গাজীপুরে আলাদা দু’টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২, আহত ২ গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত গাজীপুর-ময়মনসিংহ মহাসড়ক সেজেছে বর্ণিল ফুলে ফুলে এলইডি বাতিতে আলোকিত হচ্ছে ডিএনসিসির সড়ক দেড় হাজার মেট্রিক টন ভারতীয় পেঁয়াজ এসেছে আইনমন্ত্রীর মহানুভবতায় বিক্রি করা সন্তান ফিরে পেলেন মা শিক্ষার্থী ঝরে পড়া রোধে আসছে নানা কর্মসূচি
১৫৭

ঝুঁকি নিয়েই বিশ্বের ৬৭টি দেশে খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট ২০২০  

মহামারি করোনা পরিস্থিতির মধ্যে ঝুঁকি নিয়েই আগামী সপ্তাহে ৬৭টিরও বেশি দেশে চালু হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। বিশ্বব্যাংক এবং জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা- ইউনিসেফ বলছে, সংক্রমণ এড়াতে নীতিমালায় ভিন্নতা থাকলেও অধিকাংশ দেশই বাস্তবসম্মত ব্যবস্থা নিয়েছে। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও বয়সের ভিত্তিতে মাস্ক ব্যবহারে নতুন নির্দেশনা দিয়েছে। তবে উদ্বেগ বাড়িয়েছে, সম্প্রতি জার্মানিসহ বেশ কিছু দেশের পরিস্থিতি। সতর্কতা স্বত্ত্বেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভাইরাস ছড়িয়েছে দেশগুলোতে। 

চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে কয়েক মাস বন্ধ থাকার পর জুন-জুলাইয়ে বেশকিছু দেশে খুলে দেয়া হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বিধিনিষেধ আরোপ করে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে নরওয়ে, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন ও তাইওয়ানসহ বেশকিছু দেশে সফলতা মিললেও জার্মানি-যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি দেশে স্পষ্ট হয় ব্যর্থতার চিত্র। 

এমন পরিস্থিতিতেও আগামী সপ্তাহে ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার অধিকাংশ দেশ শিক্ষা কার্যক্রম চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দীর্ঘ তর্ক-বিতর্ক ও আলোচনার পর সংক্রমণ ঠেকাতে নিজস্ব নীতিমালা নির্ধারণ করে দেশগুলো। এর মধ্যে মাস্ক পড়া, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা, শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ ও হাত ধোয়ার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব পেয়েছে।

পরিবহন ব্যবস্থা ও শ্রেণীকক্ষেও পরিবর্তন এনেছে অনেকে। ছোট ছোট গ্রুপে ভাগ করে আলাদা সময়ে ক্লাস ও অতিরিক্ত শিক্ষক রেখেছে অনেক দেশ।  

এদিকে নতুন নির্দেশনায় ১২ বছর ও তার বেশি বয়সী শিশুদের মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক এবং ৬ থেকে ১১ বছর বয়সীদের ঝুঁকিপূর্ণ ক্ষেত্রে মাস্ক পড়ার বিধান দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।  

সুরক্ষা ও শিক্ষা একসঙ্গে নিশ্চিত করা চ্যালেঞ্জিং- এমন মত থেকে কেউ কেউ অনলাইনেই শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। যদিও ডিজিটাল পদ্ধতির সহজলভ্যতা এবং শিক্ষার গুণমান নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়।  

গাজীপুর কথা
আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর