ব্রেকিং:
করোনা আপডেট বাংলাদেশ ২৪/০১/২০২১: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২০ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮০২৩, নতুন ৪৭৩ জন সহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫৩১৭৯৯ জন। নতুন ৫১৪ জন সহ মোট সুস্থ ৪৭৬৪১৩ জন। একদিনে ১৪১৬৯টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ৩৫৫৫৫৫৮টি।
  • সোমবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১২ ১৪২৭

  • || ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
২৪ জানুয়ারি, ঐতিহাসিক গণ-অভ্যুত্থান দিবস ইতিহাস সৃষ্টি করলেন প্রধানমন্ত্রী, বাড়ি পেল ৭০হাজার গৃহহীন পরিবার সোমবার ঢাকায় আসছে ৫০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ২৭ জানুয়ারি করোনার প্রথম টিকা পাবেন কুর্মিটোলার নার্স কাপাসিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেলেন ভূমিহীন ও গৃহহীনরা প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেলেন ভালুকার ১৯৯ গৃহহীন পরিবার গাজীপুরের গাছা’য় বঙ্গবন্ধু কলেজের ভবন উদ্বোধন গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ কালিয়াকৈরে গৃহহীন বিধবাকে গৃহ নির্মাণ করে দিল পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেলেন শ্রীপুরের ২০ পরিবার বাংলাদেশকে করোনার টিকা উপহার দেবে চীনা প্রতিষ্ঠান বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে ২৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে বার্জার পেইন্টস বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা যাবে মোবাইলে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী কালিয়াকৈরে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন ভালুকায় নৌকা প্রার্থীর পক্ষে ব্যবসায়ী সমিতির মতবিনিময় সভা
৪৮

ঝালকাঠির ৫শ’ বছরের ঐতিহ্য তিন গম্বুজ মসজিদ

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ৮ জানুয়ারি ২০২১  

ঝালকাঠিতে ৫শ’ বছরের ঐতিহ্য হিসেবে আজও ঠায় দাঁড়িয়ে আছে তিন গম্বুজ বিশিষ্ট মিয়া বাড়ি জামে মসজিদ। স্থানীয়দের কাছে এটা তিন গম্বুজ মসজিদ নামেই পরিচিত।
শোনা যায়, ঝালকাঠি সদর উপজেলার গাভারামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের ভারুকাঠি গ্রামে আস্তানা গেড়েছিলেন বাংলার সুবাদার মুঘল সম্রাট শাহজাহানের দ্বিতীয় ছেলে শাহ সুজার সঙ্গী শেখ আব্দুল মজিদ। তিনিই এ মসজিদের নির্মাতা। তিন গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদের দেয়াল ৪২ ইঞ্চি পুরু। মসজিদের সামনে ঘাট বাঁধানো সুবিশাল দীঘি।

এ দীঘি ও মসজিদের সঙ্গে জড়িত অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শেরে-বাংলা আবুল কাশেম ফজলুল হকের স্মৃতি। মিয়া বাড়িতে তার নিকটাত্মীয়রা বসবাস করতেন। সেই সূত্রে এখানে বেড়াতে এসে দীঘিতে গোসল, মসজিদে নামাজ আদায় করতেন একে ফজলুল হক।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অনিন্দ্য সুন্দর মিয়া বাড়ি জামে মসজিদ ভারুকাঠি গ্রামের প্রাচীন স্থাপত্যশৈলীর অন্যতম আকর্ষণ। এটি ১৬০০ খ্রিস্টাব্দে নির্মিত হয়েছে বলে ধারণা করেন গ্রামের প্রবীণরা।

দ্বিতল মুঘল আমলের কারুকার্য মণ্ডিত। মূল মসজিদে রয়েছে তিনটি দরজা। চারপাশে পিলারের উপর নির্মিত হয়েছে ছোট বড় পাঁচটি মিনার। মিনারগুলোও নান্দনিক নকশায় অলংকৃত। তিনটি গম্বুজের মাঝেরটি সবচেয়ে বড়। এটির ভেতরেও রয়েছে কারুকার্য।

ভারুকাঠি গ্রামের প্রবীণ নেছার উদ্দিন আহমেদ জাহাঙ্গীর মিয়া বলেন, এ মসজিদ নির্মাণের সঠিক সময় এখন কেউ বলতে পারবে না। তবে বাপ-দাদার মুখে শুনে এসেছি মসজিদটি প্রায় ৫শ’ বছরের পুরোনো। মসজিদ ও দীঘি একই সময় নির্মাণ করা হয়েছে। মসজিদ সংলগ্ন কাঁঠাল গাছের গোড়া থেকে সবগুলো করবস্থানই বাঁধাই করা।

তিনি আরো বলেন, শেরে-বাংলা একে ফজলুল হক আমার দাদার খালাতো ভাইয়ের ছেলে। তার অনেক স্মৃতি এই মসজিদ ও দীঘির ঘাটলায় আছে। পাকিস্তান আমলের মন্ত্রী খান বাহাদুর আফজাল পিরোজপুরের বাসিন্দা। তার মাতুল বাড়ি এটা। খান বাহাদুর আফজালেরও অনেক স্মৃতি রয়েছে এখানে।

ঝালকাঠি সদর উপজেলা পরিষদ থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত মিয়া বাড়ি তিন গম্বুজ বিশিষ্ট জামে মসজিদ। ঝালকাঠি কলেজ মোড় থেকে বাসে নবগ্রাম যেতে হবে। এরপর টেম্পুতে চড়ে গুদিগাটা নেমে একটু ভেতরে গেলেই দেখা মিলবে ভারুকাঠির ঐতিহ্য মিয়া বাড়ি তিন গম্বুজ বিশিষ্ট জামে মসজিদের।

গাজীপুর কথা