ব্রেকিং:
করোনা আপডেট বাংলাদেশ ০৮/আগস্ট/২০২০: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩২ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৩৬৫, নতুন ২৬১১ জনসহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২৫৫১১৩, নতুন ১০২০ জনসহ মোট সুস্থ ১৪৬৬০৪ জন, একদিনে ১১৭৩৭ টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ১২৪৯৫৬০ টি।
  • রোববার   ০৯ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭

  • || ১৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

সর্বশেষ:
আজ জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে সপ্তাহব্যাপী প্রদশর্নী শুরু আজ একাদশের ভর্তি শুরু হচ্ছে আজ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছিলেন বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত সহচর: প্রধানমন্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা মুজিব নারী সমাজের প্রেরণার উৎস: রাষ্ট্রপতি বঙ্গমাতার জন্মদিনে ১৩০০ নারীকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার মাহিন্দা রাজাপাকসেকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন আদিবাসী শব্দ ব্যবহার না করতে তথ্য বিবরণী জারী করেছে সরকার কালিয়াকৈরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল গাসিক মেয়রের নির্দেশে বন্যার্তদের ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছেন কাউন্সিলররা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মদিবসে কাপাসিয়ায় সেলাই মেশিন বিতরণ
১৩৬

গাজীপুরে করোনার কারনে রিসোর্ট ব্যবসায় ধস

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ২৬ জুলাই ২০২০  

করোনার কারনে লোকসান গুনছে গাজীপুরের ২ শতাধিক রিসোর্ট, পিকনিক ও শুটিং স্পট।এই প্রতিষ্ঠানেগুলোতে কাজ করতেন ২৫ হাজারের বেশি কর্মী। বর্তমানে শতকোটি টাকার আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছে রিসোর্টগুলোর। উদ্যোক্তারা বলছেন, সরকার করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত অনেক খাতে প্রণোদনা দিয়েছে। কিন্তু পর্যটন খাতে কোনো প্রণোদনা দেয়নি। এ শিল্পকে এগিয়ে নিতে সরকারের সহযোগিতা চান উদ্যোক্তারা ।

গত মার্চ ও এপ্রিলে গাজীপুরের রাজাবাড়ী এলাকার সারাহ রিসোর্টে বুকিং ছিল দেড় কোটি টাকার বেশি। দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের পর একের পর এক বুকিং বাতিল হতে থাকে। সরকারি সিদ্ধান্তে গত ১৯ মার্চ থেকে বন্ধ আছে ২০০ বিঘা জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত দেশের অন্যতম বড় রিসোর্টটি। এতে ওই ২ মাসে রিসোর্টটির আর্থিক ক্ষতি হয় কমপক্ষে আড়াই কোটি টাকা। তবে বন্ধ থাকলেও একাধিক সুইমিংপুল, জিম, খেলাধুলার হরেক রকমের মাঠ, শিশু কর্নার, বোটিং ইত্যাদিসহ আধুনিক সব সুবিধা নিয়ে গড়ে ওঠা রিসোর্টটির কর্মীদের বেতন ও রক্ষণাবেক্ষণে প্রতি মাসে ব্যয় করতে হচ্ছে প্রায় কোটি টাকা।

বর্তমানে এ চিত্র শুধু সারাহ রিসোর্টের নয়, করোনায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে গাজীপুরের দুই শতাধিক রিসোর্ট, পিকনিক ও শুটিং স্পট। সারাহ রিসোর্টের সেলস অ্যান্ড রিজার্ভেশন বিভাগের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ মাজাহারুল ইসলাম বলেন, ‘মার্চ-এপ্রিল আমাদের ভরা মৌসুম। বিদেশি প্রতিষ্ঠান এবং দেশীয় করপোরেট প্রতিষ্ঠানের এপ্রিল পর্যন্ত বুকিং ছিল। চীনে করোনার প্রভাব বিস্তারের পর এর ঢেউ আমাদের দেশেও এসে পড়ে। বিদেশিরা আসতে না পারায় মার্চের শুরু থেকেই বুকিং বাতিল হতে থাকে। কমতে থাকে দেশীয় অতিথিদের সংখ্যাও। রিসোর্ট বন্ধ থাকায় শুধু ওই দুই মাসেই আড়াই থেকে তিন কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

ট্যুরিজম রিসোর্ট অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. এমারত হোসেন বলেন, পৃথিবীর বহু উন্নত দেশ শুধু পর্যটনের আয় দিয়ে চলছে। তারা ট্যাক্সসহ অনেক সুবিধা দিচ্ছে। অথচ আমাদের দেশে ভ্যাট-ট্যাক্স অনেক বেশি। গাজীপুরের দুই শতাধিক রিসোর্ট, পিকনিক ও শুটিং স্পট শিল্পে ২৫ হাজার কর্মী কাজ করেন। তাঁদের প্রায় ২০ হাজারই এখন বেকার। রিসোর্ট, পিকনিক ও শুটিং স্পট মালিকরা ভর্তুকি দিয়ে টিকে আছেন। মাসে শতকোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে। আয় না থাকলেও ভ্যাট কর্তৃপক্ষকে প্রতি মাসে রিটার্ন দাখিল করতে হচ্ছে। সরকার করোনা মহামারিতে অনেক খাতে প্রণোদনা দিয়েছে। কিন্তু পর্যটন খাতে কোনো প্রণোদনা দেওয়া হয়নি। এ শিল্পকে এগিয়ে নিতে সরকারকে উদ্যোগী হতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।

গাজীপুর কথা
গাজীপুর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর