ব্রেকিং:
দেশে ২৪তম দিনে ১ লাখ ৯৮৩ জন ভ্যাকসিন নিয়েছেন। এরমধ্যে পুরুষ ৬১ হাজার ৩৫৪ জন ও নারী ৩৯ হাজার ৬২৯ জন। এ পর্যন্ত ৩৬ লাখ ৮২ হাজার ১৫২ জন ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ২৩ লাখ ৫৫ হাজার ৪২৩ জন ও নারী ১৩ লাখ ২৬ হাজার ৭২৯ জন। ভ্যাকসিন নিতে নিবন্ধন করেছেন ৪৯ লাখ দুই হাজার ৯৪৮ জন। করোনা আপডেট বাংলাদেশ ০৬/০৩/২০২১: করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১০ জনের মৃত্যু এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮৪৫১, নতুন ৫৪০ জন সহ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫ লাখ ৪৯ হাজার ৭২৪ জন। নতুন ৮২২ জন সহ মোট সুস্থ ৫ লাখ ১ হাজার ৯৬৬ জন। একদিনে ১৩ হাজার ৮২টি সহ মোট নমুনা পরীক্ষা ৪১ লাখ ৩১ হাজার ১১৩টি।
  • রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২৩ ১৪২৭

  • || ২৩ রজব ১৪৪২

সর্বশেষ:
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ। বাঙালি জাতির দীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অনন্য দিন। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী কমনওয়েলথের অনুপ্রেরণাদায়ী ৩ নারী নেতার একজন শেখ হাসিনা ইউনেস্কোতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বাংলাদেশের অসাধারণ সাফল্যের প্রশংসা করলেন ইতালির রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশকে এক কোটি ৯ লাখ ডোজ টিকা দেবে জাতিসংঘ চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছাল রেলের ৮ ব্রডগেজ ইঞ্জিন মেট্রোরেলের জন্য রেলকোচের প্রথম চালান পাঠিয়েছে জাপান ঢাকা-জলপাইগুড়ি ট্রেন চালু হচ্ছে ২৬ মার্চ করোনা টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন ৪৫ লক্ষাধিক মানুষ

কমে যেতে পারে প্রতি মিনিটে ৬০ সেকেন্ডের সংখ্যা

গাজীপুর কথা

প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারি ২০২১  

এক মিনিট সমান ৬০ সেকেন্ড, এটার কোনো দিন কোনো পরিবর্তন আসতে পারে সেটা আমরা কোনো দিন ভাবতেই পারি না। শৈশবকাল হতেই এটা আমাদের জানা। তবে এই ধারণাটি এবার চিরতরে পরিবর্তিত হতে পারে। বিজ্ঞানীরা ভাবছেন যে, এক মিনিটে সেকেন্ডের যে সংখ্যা সেটা হ্রাস হয়ে যেতে পারে। ব্রিটিশ মিডিয়া টেলিগ্রাফ তাদের করা একটি প্রতিবেদনে এমন ধরনের খবর প্রকাশ করেছে।

সাম্প্রতিক সময়ের একটি গবেষণা হতে পাওয়া তথ্য অনুসারে, গত কয়েক বছর ধরে পৃথিবীর নিজের অক্ষের উপরে যে ঘূর্ণন গতি সেটা তুলনামূলকভাবে বেড়েছে। বিজ্ঞানীরা বলেছিলেন যে, ২০২০ সালের সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত দিনের সংখ্যা ছিল ২৮ টি। এটি ১৯৬০ সালের পর হতে সর্বাধিক সংখ্যক কম দিন।

বিজ্ঞানীরা আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়ে বলেছেন ২০২১ সালে আরও ছোট দিন হতে পারে। সময় ও তারিখ অনুযায়ী, সূর্যের প্রতি গড় হিসাবে পৃথিবী প্রতি ৮৬,৪০০ সেকেন্ডে একবারে ঘোরে, যা ২৪ ঘণ্টা বা একটি অর্থ সৌরদিনের সমান।

বিজ্ঞানীরা ধারণা করছেন, ২০২১ সালের গড় দিনটি ৮৬,৪০০ সেকেন্ডের চেয়ে ০.০৫ মিলি সেকেন্ড কম হবে। পৃথিবী তার নিজ অক্ষে একবার ঘুরতে সময় নিচ্ছে ২৩ ঘণ্টা ৫৯ মিনিট ৫৯.৯৯৯৮৯২৭ সেকেন্ড। এর ফলে ২০২১ সাল সাধারণ বছরের থেকে ১৯ মিলি সেকেন্ড ছোট হবে, যা গড়ে প্রতিদিন প্রায় ০.৫ মিলি সেকেন্ড কম।

সময়ের এই অসামঞ্জস্য নতুন নয়। হ্রাস পাওয়া সময়ের হেরফেরের সমাধান করতেই কোনো কোনো বছরে এক ’লিপ সেকেন্ড’ যোগ করা হয়। ষাটের দশকে আণবিক ঘড়ি আবিষ্কারের পর থেকে এখন পর্যন্ত ২৭ বার এমন ’লিপ সেকেন্ড’ যোগ করা হয়েছে। শেষবার ’লিপ সেকেন্ড’ যোগ করা হয় ২০১৬ সালে।

তার পর থেকে, পৃথিবী তার পূর্বের স্বাভাবিক ঘূর্ণনের যে গতি সেটার তুলনায় দ্রুত গতিতে ঘুরছে, এমনটাই বলছে গবেষণায়। সুতরাং বিজ্ঞানীরা সময়ের সমতাকে ফিরিয়ে আনার জন্য একটি ’ঋণাত্মকলিপ সেকেন্ড’ প্রনয়ন করবার জন্য পরামর্শ দেন।

যদিও আপাতদৃষ্টিতে এতটা অল্প সময়ের যে তফাৎ সেটা খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন না সাধারনের নিকট, তবে এটি বৈজ্ঞানিক রিসার্স, কৃত্রিম উপগ্রহ সিস্টেম ডিরেকশন এবং নেভিগেশন সিস্টেম পরিচালনার উপর বেশ বড় রকমের প্রভাব আছে।

গাজীপুর কথা